ঘরের ব্যবহৃত জিনিস থেকেই অ্যালার্জি ছড়ায়

শীতকালে মানুষের শরীরে বেশি অ্যালার্জি দেখা দেয়। শুষ্ক আবহাওয়া, ধুলাবালি, দুর্গন্ধ, তীব্র ঠান্ডা বাতাস প্রভৃতির সংস্পর্শে অনেকেরই অ্যালার্জি দেখা দেয়। এক্ষেত্রে ঘরের ব্যবহৃত জিসিপত্রের ধুলাময়লা থেকেই বেশি অ্যালার্জি ছড়ায়। এ কারণে সবসময় বাড়িঘর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে।

১. বিছানার চাদর, বালিশের কভার, লেপের কভার, মশারি ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করতে হবে। পারলে মাঝে মাঝে রোদে লেপ, কম্বল, কাঁথা, তোষক মেট্রেস শুকিয়ে নিতে হবে। এতে জীবাণু চলে যায়।

২. বাসার বিভিন্ন আসবাবপত্রের ফাঁকে ফাঁকে ধুলোবালি থাকে। অ্যালার্জি থেকে বাঁচতে প্রতিদিন এইসব আসবাবপত্র ঝাড়া-মোছা করতে হবে।

৩. বইয়ের সেলফে অনেক বই সাজিয়ে রাখে? এই কারণে প্রতিদিন ঘর পরিষ্কার করার সময় কিছু ময়লা বইয়ের সেলফে জমে থাকে। তাই দুয়েক দিন পর পর বইগুলো নাড়াচাড়া করতে হবে।

৪. পরিষ্কার করা ম্যাট ও কার্পেট মেঝেতে বিছানোর আগে মেঝে পানি দিয়ে মুছে নিতে হবে।

৫. এক সপ্তাহ পর পর ভেজা কাপড় দিয়ে দরজা, জানালা মুছে নেয়া দরকার।

৬. গোসলখানা পরিষ্কার রাখতে হবে। জানালা খোলা রাখতে হবে যাতে করে আলো-বাতাস প্রবেশ করে।

৭. ফ্লোর ক্লিনার ও গরম পানি দিয়ে রান্নাঘর পরিষ্কার করা প্রয়োজন। তাছাড়া রান্না ঘরে রাখা বিভিন্ন মসলার কৌটা, হাঁড়ি-পাতিল, জার ও গ্যাস চুলা প্রতিদিন পরিষ্কার করা প্রয়োজন।

মতামত দিন