বাজারে এসেছে তেলাপোকার দুধ!

তেলাপোকা দেখলে অনেকেরই শরীর ঘিন ঘিন করে ওঠে। অসহ্য এই নোংরা পোকাটির উৎপাদন নিয়ে মানুষের বিড়ম্বনার শেষ নেই। ঘর থেকে তেলাপোকা তাড়াতে চলে নানা কসরত। অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে, এই তেলাপোকাই আগামীতে হয়ে ওঠবে দামি একটি পতঙ্গ। কারণ তেলাপোকাকে প্রক্রিয়াজাত করে তৈরি হচ্ছে দুধ। এরই মধ্যে এই দুধ বাজারেও এসে গেছে।

তেলাপোকার এই দুধকে পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ ‘সুপারফুড’ হিসেবে বর্ণনা করা হচ্ছে। গবেষকদের মতে, তেলাপোকার দুধ মানুষের জন্য বিশেষ উপকারী। কারণ এতে গরুর দুধের চেয়েও অনেক বেশি শক্তি রয়েছে। রয়েছে অনেক বেশি অ্যামিনো অ্যাসিড।

তেলাপোকাকে চাপ দিয়ে মেরে ফেললে যে সাদারঙের থকথকে তরল বেরিয়ে আসে, সেটাকে প্রক্রিয়াজাত করে কী এই দুধ উৎপাদিত হয়? আসলে তেলাপোকার পেট কেটে দুধ সংগ্রহ করার চিন্তা করাই প্রায় অসম্ভকরা হয়? এই দুধ সংগ্রহ করা হয় তেলাপোকার একটি বিশেষ জাত -প্যাসিফিক বিট্ল ককরোচ থেকে। এই তেলাপোকা ডিম পাড়ে না। এরা বাচ্চা দেয় এবং এর দেহে দুধ তৈরি হয়। তবে এই দুধ তরল আকারে থাকে না। তাই ‘দুধ দোয়ানোর’ কোনো ব্যাপার থাকে না।

বিজ্ঞানীরা তেলাপোকার পেট কেটে তার মধ্য থেকে স্ফটিক আকারে থাকা এই দুধ সংগ্রহ করা হয়।তেলাপোকার দুধ নিয়ে গবেষণা করছে যেসব বিজ্ঞানী তাদের একজন হলেন ড. লিওনার্ড শ্যাভাজ। তিনি জানাচ্ছেন, তেলাপোকার দুধ সংগ্রহ করাটা এখনও ব্যয়বহুল রয়ে গেছে। প্রতি ১০০ গ্রাম দুধের জন্য আপনাকে ১০০ তেলাপোকা লাগছে । আগামীতে এটি আরো সহজলভ্য করে তোলার চেষ্টা চলছে।

বিশ্বের অনেক দেশেই খাদ্য হিসেবে তেলাপোকা বেশ জনপ্রিয়। পূর্ব এশিয়ায় ভ্রমণে গিয়ে অনেকেই স্ট্রিট ফুড হিসেবে ভাজা তেলাপোকার স্বাদ নিয়েছেন। চেখে দেখেছেন তেলাপোকার কাবাব।

মতামত দিন