অবশেষে ড্রাইভিং লাইসেন্স পেল সৌদি নারীরা

গত কয়েক দশকের মধ্যে এ প্রথম  ড্রাইভিং লাইসেন্স পেল সৌদি নারীরা। এতদিন দেশটিতে নারীদের গাড়ি চালানো নিষিদ্ধ ছিল। সম্প্রতি এ নিষেধাজ্ঞা তুলে দেয় সৌদি সরকার। বিবিসির সংবাদ।

দেশের অভ্যন্তরে গাড়ি চালানোর সুযোগ পেয়ে দশ নারী এদিন বিদেশি ড্রাইভিং লাইসেন্স ছেড়ে দিয়ে সৌদি লাইসেন্স গ্রহণ করে।

নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ায় লাইসেন্স পেতে আগামী ২৪ জুন পর্যন্ত নারীদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া পড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।

সৌদি আইন অনুযায়ী যে কোন ধরণের সিদ্ধান্ত ও কর্মকাণ্ডের জন্য পুরুষদের কাছ থেকে অনুমতি নিতে হয় নারীদের। এভাবেই নারীদের গাড়ি চালানোর বিষয়টা নিষিদ্ধের পর্যায়ে চলে যায় এবং নারীদের চলাচলের জন্য আলাদাভাবে গাড়িচালক রাখা হতো সৌদি পরিবারে।

কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে নারীদের গাড়ি চালাতে দেয়ার অধিকার আদায়ে সোচ্চার ছিল  মানবাধিকার সংগঠনগুলো। এ কারণে বেশ কিছু মানবাধিকার কর্মীকে আটকও করেছিল সরকার।

এ দিকে গত মাসে বিদেশি শক্তির সাথে কাজ করা ও দেশের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করার অভিযোগে কয়েকজন নারী-পুরুষ মানবাধিকার কর্মীকে গ্রেফতার করে সরকার।

গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে লুযাইন আল হাতলুলও বেশ অগ্রণী ভূমিকা রেখে ছিলেন নারীদের গাড়ি চালাতে দেয়ার অধিকার আদায়ে।

গতমাসের ঘটনায় ১৭ জনকে গ্রেফতার করলেও সৌদি সরকার বলছে তাদের আটজনকে মুক্তি দেয়া হয়েছে। তবে এ ঘটনায় অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালসহ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনগুলো সৌদি সরকারের সমালোচনা করেছে।

মতামত দিন