অভিজাত রেস্টুরেন্টের ফ্রিজে ‘কুকুরের খাবার’!

রান্নাঘরের দেয়ালে, থালাবাসনে, ফ্রিজে অসংখ্য জীবিত ও মৃত তেলাপোকা। রান্না করা আর কাঁচা রক্তাক্ত মাংস ফ্রিজে একসঙ্গে রাখা হয়েছে। এছাড়াও ফ্রিজ থেকে উদ্ধার করা হয় খাবারের উচ্ছিষ্ট।

এমন দৃশ্য দেখা গেছে রাজধানীর অভিজাতপাড়া গুলশানের টপকাপি রেস্টুরেন্টে। বুধবার র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলমের নেতৃত্বে গুলশান-১ এলাকায় অভিযানের সময় এমন অবস্থা দেখে ঐ রেস্টুরেন্টকে আট লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

র‍্যাবের অভিযানে দেখা যায়, রেস্টুরেন্টটির রান্নাঘর অত্যন্ত নোংরা ও অপরিষ্কার।

হোটেলের ফ্রিজে খাবারের উচ্ছিষ্ট কেন? ম্যাজিস্ট্রেটের এমন প্রশ্নে টপকাপি রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষ দাবি করছে, মালিকের কুকুরকে খাওয়ানোর জন্য রাখা হয়েছে।

ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম বলেন, কুকরের খাবার মাংস কেন মানুষের খাবার মাংসের সঙ্গে রাখা হয়েছে? এই প্রশ্নে রেস্টুরেন্টটি কোনো সদুত্তর মেলেনি। তাদের আট লাখ টাকা জরিমানা করে পরিবেশ উন্নয়নের জন্য তিনদিন সময় বেঁধে দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

অভিযানে গুলশানের ব্যাটন রোজ রেস্টুরেন্টের রান্নাঘরে গিয়েও নোংরা পরিবেশ দেখা যায়। রেস্টুরেন্টটির স্টোররুমে দেখা যায় ইঁদুরের উৎপাত। এছাড়াও খাবারের শেলফে খাবারের সঙ্গে রাখা ছিল স্টাফের জুতা। প্রতিষ্ঠানটিকে দুই লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

এদিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) পৃথক একটি অভিযানে রাজধানীর গুলশান-১ এর মাওলা ট্রেডার্সকে সাত লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

ডিএমপির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মশিউর রহমান বলেন, অভিযানে বিএসটিআইয়ের অনুমোদন ব্যতীত খাদ্যদ্রব্য বিক্রি ও মেয়াদউত্তীর্ণ পণ্য বিক্রির অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটিকে এই জরিমানা করা হয়।

মতামত দিন