‘যারা ক্লাসে পড়ান না, তারাই প্রশ্ন ফাঁস করেন’

প্রশ্ন ফাঁসের ক্ষেত্রে কিছুটা ব্যর্থটা স্বীকার করে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, ‘ নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করলেও কিছু লোকের কারণে প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধ করা সম্ভব হয়ে উঠছে না। প্রশ্নপত্র ফাঁস করেন তারাই যারা ক্লাসে পড়ান না। তারা টাকার বিনিময়ে প্রশ্নপত্র ফাঁস করে দেন। পরীক্ষার হলে উত্তর বলে দেন।তবে যারা প্রশ্নপত্র ফাঁসে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে নিয়মিত ব্যবস্থা নিচ্ছি।এদের কারণে পুরো দেশ ভুগছে।‘

শনিবার (৬ জানুয়ারি) দুপুরে রাউজানে কদলপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘যারা প্রশ্নপত্র ফাঁস করে দেয় তারা শিক্ষক না। তারা মানুষের বিশ্বাস নষ্ট করছে। তারা কেউ রেহাই পাবে না। তাদের শাস্তি পেতেই হবে।’

শিক্ষা্মন্ত্রী বলেন, ‘বিভিন্ন আন্তর্জাতিক অনুষ্ঠানে যখন বক্তব্যে বাংলাদেশের শিক্ষার পরিসংখ্যান তুলে ধরি তখন তারা আশ্চর্য হয়ে যায়। তারা বলে, ‘‘আমাদের দেশে জনসংখ্যা আছে ৭০ লাখ আর তোমাদের ৫ কোটি শিক্ষার্থী। তাদের মেইনটেইন করতে হিমশিম খাও না।’’

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মো.সোহরাব হোসাইন বলেন, ‘প্রশ্নপত্র ফাঁসের ক্ষেত্রে বারবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে দোষারোপ করা হয়। এটির সঙ্গে শিক্ষামন্ত্রণালয়ের কোনো সম্পর্ক নেই। শিক্ষামন্ত্রণালয় শুধু মনিটরিং করে। প্রশ্ন সংক্রান্ত সব বিষয় শিক্ষা বোর্ডের কাজ।

জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন সাবেক মন্ত্রী ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ সচিব মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী, শিক্ষা ও প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী দেওয়ান মোহাম্মদ হানজালা, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মু.মোহসিন চৌধুরী প্রমুখ।

মতামত দিন