“বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন বাঙ্গালী জাতির জাগরণের অগ্রদূত”

সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ কর্তৃক আয়োজিত শোকসভায় বক্তারা বলেন- “জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন বাঙ্গালী জাতির জাগরণের অগ্রদূত” ।
স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ, চট্টগ্রাম এর উদ্যোগে সমিতির ৩নং মিলনায়তনে আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের আহবায়ক মোহাম্মদ আইয়ুব খানের সভাপতিত্বে এবং সমিতির তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক মোহাম্মদ হাসান মুরাদের সঞ্চালনায় শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত শোকসভায় বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য এ.কে.এম. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, রতন কুমার রায়, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু মো. হাশেম, অশোক কুমার দাশ, মো. আবদুর রশীদ, সমিতির সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি এম.এ.নাছের চৌধুরী, মুজিবুর রহমান চৌধুরী, দিদারুল আলম চৌধুরী, সাবেক সহসাধারণ সম্পাদক কাজী নজমুল হক, দুদক পিপি মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী, সিনিয়র আইনজীবী সৈয়দ মোক্তার আহমদ, অন্য্যন্য আইনজীবীদের মধ্য বক্তব্য রাখেন সাবেক পাঠাগার সম্পাদক মো. সালাউদ্দিন আহমদ চৌধুরী লিপু, সাবেক সাংস্কৃতিক সম্পাদক পাপড়ী সুলতানা, দুলাল চন্দ্র দেবনাথ, সাবেক তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক মো. রাশেদুল আলম ও কানু রাম শর্মা, মো. ওমর ফারুক শিবলী, ফিরোজ উদ্দিন তারেক, মঈনুল আলম চৌধুরী, গোলাম মোস্তফা, সাইফুল ইসলাম অভি, উজ্জ্বল সরকার, পিটু কুমার শীল, বিবি আয়েশা, রোকসানা আক্তার, সুমন চৌধুরী, মো. আজাদ, মো. ওমর ফারুক, সুজিত মহাজন, ভ’পাল চৌদুরী, মো. আলম উদ্দিন, তোফাজ্জল হোসেন এবং সামশুল আলম, এছাড়া কার্যনির্বাহী পরিষদের সহসভাপতি মো. রফিকুল আলম, সহসাধারণ সম্পাদক ী সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের সদস্য সচিব মো. রাশেদ ফারুকী, নির্বাহী সদস্য যথাক্রমে মো. জাহিদুল ইসলাম চৌধুরী, মো. আরিফ উদ্দীন চৌধুরী, পাইরিন আক্তার, মোহাম্মদ আফজাল হোসাইন, মো. সাহেদ উল আলম সাইমনসহ বিপুল সংখ্যক আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন।
সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের আহবায়ক মো. আইয়ুব খান বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙ্গালী জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্টে অতিপ্রত্যুষে ঘটেছিল ইতিহাসের বেদনাবিধুর ও বিভীষিকাময় সেই কলঙ্কজনক ঘটনা। সেনাবাহিনীর কিছু উচ্চঙ্খল ও বিপদগামী সৈনিকের হাতে স্বপরিবারে প্রাণ দিয়েছিলেন বাঙালির ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ সন্তান, স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ব্যক্তি বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হলেও তাঁর আদর্শকে কখনো হত্যা করা যাবে না। তাঁর আদর্শ প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে অমলিন হয়ে থাকবে। শোষণহীন, বৈষম্যহীন, আইনের শাসন ও ন্যায় ভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তোলার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু আদর্শে অনুপ্রাণিত হতে হবে। উপমহাদেশের ইতিহাসে শ্রেষ্ঠ কয়েকজন রাষ্ট্রনায়ক ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের মধ্য বঙ্গবন্ধু অন্যতম। এ জাতিকে স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখে বাস্তবায়ন করেছেন আমাদেরই প্রিয় নেতা। বিশ্ববাসী বঙ্গবন্ধুকে বিশ্ববন্ধু হিসেবে উপাধি দেওয়ায় জাতি হিসেবে আজ আমরা গর্বিত।

মতামত দিন