লামায় উন্নয়ন প্রকল্প পরিদর্শনে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, লামা (বান্দরবান) প্রতিনিধি:

লামা উপজেলায় “দুর্যোগ সহনীয় ঘর নির্মান” প্রকল্প সহ বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের কার্যক্রম পরিদর্শনে আসেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) মোঃ শাহাদৎ হোসেন। শনিবার (২৪ আগস্ট) লামা সদর ইউনিয়ন ও লামা পৌরসভার বেশ কিছু উন্নয়ন কার্যক্রম সরজমিনে পরিদর্শন শেষে তিনি প্রকল্পের কাজের মান নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

পরিদর্শনকালীন সময়ে সাথে ছিলেন, লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নূর-এ-জান্নাত রুমি, সদর ইউপি চেয়ারম্যান মিন্টু কুমার সেন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মজনুর রহমান সহ প্রমূখ। সকালে মহাপরিচালক মোঃ শাহাদৎ হোসেন লামা উপজেলা পরিষদে পৌঁছালে তাকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার। পরিদর্শনকালে তিনি প্রকল্পের সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, উপকারভোগী ও এলাকাবাসীর সাথে মতবিনিময় করেন।

সদর ইউপি চেয়ারম্যান মিন্টু কুমার সেন বলেন, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ শাহাদৎ হোসেন শনিবার নির্মাণাধীন দূর্যোগ সহনীয় ঘর, এইচবিবি রাস্তা, পিআইও ব্রিজ, কালভার্ট, আশ্রয়ণ প্রকল্প সহ নানান উন্নয়ন প্রকল্প ঘুরে ঘুরে দেখেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ-জান্নাত রুমি বলেন, গত অর্থবছরে লামায় বরাদ্দপ্রাপ্ত ১৫টি দূর্যোগ সহনীয় ঘর নির্মান সফলভাবে শেষ হতে যাচ্ছে। তিনি কার্যক্রমের সফল বাস্তবায়ন দেখে খুশি হন। শীঘ্রই দুর্যোগ সহনীয় ঘর নির্মান কাজ শেষ হবে।

প্রসঙ্গত, গত ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর হতে বান্দরবান জেলার ৭টি উপজেলায় মোট ৪১৫টি দূর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণে ১০ কোটি ৭২ লক্ষ ৯০ হাজার ৩৬৫ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। এর মধ্যে ৮৪টি গৃহের নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। সময়ের স্বল্পতা, গৃহহীন পরিবারের মালিকানা সংক্রান্ত কাগজ না থাকা, ঘর তৈরিতে পাহাড় কাটার প্রয়োজনীয়তা, ঘরের নকশা নৃ-তাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীর বিদ্যমান জীবন যাত্রার সাথে মিল না থাকা ও নির্বাচিত উপকারভোগীদের বাড়ি-ঘর দুর্গম এলাকা হওয়ায় প্রকল্পের ব্যয় বৃদ্ধির আশংকা থাকায় অবশিষ্ট ৩৩১টি গৃহের ৮ কোটি ৫৫ লক্ষ ৭৩ হাজার ৭৬১ টাকা ফেরত পাঠানো হয়েছে।

মতামত দিন