দীর্ঘ ১৭ বছর পর কধুরখীল ইউ পি নির্বাচনের তফসিল : ভোটারদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা

সৈয়দ মোঃ নজরুল ইসলাম, বোয়ালখালী প্রতিনিধি: একটি ওয়ার্ডকে পৌরসভায় অন্তর্ভুক্তসহ নানা জটিলতায় এতদিন আটকে ছিল বোয়ালখালী উপজেলার ১ নং ইউনিয়ন কধুরখীলের নির্বাচন। নানা চরাই উৎরায় পেরিয়ে অবশেষে দীর্ঘ ১৭ বছর পর ইউনিয়নটির নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা করেছে নির্বাচন কমিশন। ঘোষিত তপসীল অনুযায়ী ১২ সেপ্টেম্বর মনোনয়ন ফরম জমা, ১৫ সেপ্টেম্বর যাচাই বাচাই, ২২ সেপ্টেম্বর মনোনয়ন প্রত্যাহার এবং সর্বশেষ ১৪ অক্টোবর এ নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা রয়েছে।

নির্বাচনী তফসিল ঘোষনার পর-পরই হঠাৎ করে সরগরম হয়ে উঠে পুরো ইউনিয়ন। হাট-বাজার, চায়ের দোকান থেকে আরম্ভ করে বাড়ীর ড্রয়িংরুম জুড়ে আলোচনার বিষয়বস্তু হয়ে উঠে ব্যাপারটি। এ নিয়ে জানতে চাইলে এলাকার রাজনৈতিক সচেতন ব্যক্তি রেজা মুন্সি বলেন- দীর্ঘ বেশ কয়েকবছরেও এ ইউনিয়নের মানুষ ভোট দিয়ে তাদের পছন্দের ব্যক্তিদের চেয়ারম্যান-মেম্বার বানাতে পারেনি। তাই তারা কাঙিত উন্নয়ন ও চোখে দেখেনি। এত বছর পর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে স্বভাবতই একটু আনন্দিত হবেই তারা। বিশেষ করে নতুন যারা ভোটার তাদের আনন্দটা একটু বেশি। সূত্রমতে সর্বশেষ নির্বাচন হয়েছিল ২০০৩ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারী। এতে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন বি এন পি’র অনুসারী মোঃ ইদ্রিচ। পরবর্তিতে রাজনৈতিক পটপরিবর্তন ও সীমানাসহ নানা জটিলতায় পড়ে নির্ধারিত সময়ে নির্বাচন করা হয়নি ইউনিয়নটিতে। ফলে দীর্ঘ ১৭ বছর যাবৎ ধরে চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন মোঃ ইদ্রিচ।
২০১২ সালের অক্টোবরে এ ইউনিয়নের একটি ওয়ার্ডকে অন্তর্ভুক্ত করে বোয়ালখালী পৌরসভা গঠিত হলে জটিলতা আরো বাড়ে। কাজের সুবিধার্তে ২০১৪ সালের ১৭ জুন তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসার খন্দকার নুরুল হক প্রশাসক নিয়োগ এবং একসঙ্গে ছয়টি ওয়ার্ডকে নয়টি ওয়ার্ডে রূপান্তর করে সীমানা নির্ধারণের জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগে চিঠি দেয়। একই বছরের ১ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সরকার বিভাগ কধুরখীল ইউনিয়নে প্রশাসক নিয়োগের নির্বাহী আদেশ দেয়। এ আদেশের বিরুদ্ধে ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইদ্রিচ মহামান্য হাইকোর্টে স্থগিতাদেশ চেয়ে আবেদন করলে হাইকোর্ট ২ অক্টোবর তিন মাসের স্থগিতাদেশ দেন। গত বছরের ১৪ নভেম্বর এ রিটটি খারিজ করেন মহামান্য হাইকোর্ট। এর মধ্যে দিয়ে নির্বাচনের পথ সুগম হতে থাকে। বোয়ালখালী উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ নুরুল ইসলাম জানান- গত মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত নির্দেশনা হাতে পেয়েছি। ঘোষিত সময়সূচি অনুযায়ী এ ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠানের সকল প্রস্ততি আমাদের আছে।
বর্তমান এ ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ড মোট ১০৭৯৫ ভোটার রয়েছে। এতে পুরুষ ভোটার ৫৫৫৩, মহিলা ভোটার ৫২৪২।

মতামত দিন