এক নজরে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন

নিউজ ডেস্ক: রংপুর পৌরসভাকে সিটি করপোরেশনে উন্নীত করার পর দ্বিতীয় ভোট হচ্ছে এবার। ২০১২ সালের ২৮ জুন রংপুর পৌরসভা থেকে সিটি করপোরেশনে উন্নীত। ২০১২ সালের ২০ ডিসেম্বর প্রথম নির্বাচন নির্দলীয়ভাবে হলেও এবার মেয়র পদে ভোট হচ্ছে দলীয় প্রতীকে।
মেয়র ও কাউন্সিলর পদে ভোট বৃহস্পতিবার।সকাল ৮ টা থেকে বিকাল চার টা পর্যন্ত একটানা ভোট চলবে।

প্রার্থী সংখ্যা: মেয়র পদে সাতজন; ৩৩টি সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ২১১ জন এবং ১১টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ৬৫ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ভোট তথ্য: রংপুর সিটিতে মোট ভোটার ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৮৯৪ জন। পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৯৬ হাজার ২৫৬, মহিলা ১ লাখ ৯৭ হাজার ৬৩৮ জন। মোট ভোট কেন্দ্র ১৯৩। ভোটকক্ষ ১১৭৮টি।

ভোট গ্রহণ কর্মকর্তা ৩ হাজার ৫৫৯ জন।

মেয়র প্রার্থী: এবার আওয়ামী লীগের সরফুদ্দীন আহমেদ ঝন্টু, জাতীয় পার্টির মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা ও বিএনপির কাওসার জামান বাবলাসহ মোট সাতজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

সরফুদ্দীন আহমেদ ঝন্টু; গত এক মেয়াদে রংপুর সিটির মেয়রের দায়িত্ব পালন করে আসা এবারও মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী। গত নির্বাচনে ঝন্টুর কাছে পরাজিত মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা এবারও জাতীয় পার্টির হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

বিএনপির প্রার্থী এবারও কাওসার জামান বাবলা; প্রথম নির্বাচনে চতুর্থ অবস্থানে ছিলেন।

বাকি চারজন মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী হলেন- বাসদের আবদুল কুদ্দুস(মই), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের এ টি এম গোলাম মোস্তফা বাবু (হাতপাখা), ন্যাশনাল পিপলস পার্টির সেলিম আখতার (আম) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফ (হাতি)।

নিরাপত্তায় সাড়ে পাঁচ হাজার সদস্য

রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের নিরাপত্তা বাহিনীর পাঁচ হাজার ৫০০ সদস্য মোতায়েন করা হচ্ছে। এর মধ্যে বিজিবি ২১ প্লাটুন (৬৩০ জন), র‌্যাবের ৩৩ টিম (৪০০ জন), পুলিশ ও আনসার সদস্য থাকবে ৪ হাজার ৪৭০ জন।

এছাড়া একজন করে নির্বাহী হাকিমের নেতৃত্বে ৩৩টি স্ট্রাইকিং ফোর্স, একজন করে বিচারিক হাকিমের নেতৃত্বে ১১টি ভ্রাম্যমাণ আদালত সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র সরকার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “নির্বাচন কমিশনের ১১টি ‘নীরব পর্যবেক্ষক’ দল মাঠে নামছেন। ইসির নিজস্ব এসব কর্মকর্তা পরিচয় গোপন রেখে নির্বাচনের সামগ্রিক পরিবেশ সম্পর্কে তথ্য নির্বাচন কমিশনকে জানাবেন।”

মাঠে নেমেছে বিজিবি

নির্বাচনে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ২১ প্লাটুন বিজিবি মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে মাঠে রয়েছেন। নির্বাচনের পরদিন পর্যন্ত তারা মাঠে দায়িত্ব পালন করবেন।

ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র ১০৮টি

সিটি নির্বাচনে ১৯৩টি কেন্দ্রের মধ্যে ১০৮টিকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে নির্বাচন কমিশন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে বাড়তি নিরাপত্তা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

সাধারণ কেন্দ্রে ২২ জন ও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ২৪ জন করে নিরাপত্তা সদস্য ভোটকেন্দ্রে নিয়োজিত থাকবে।

ইভিএম এক কেন্দ্রে

১৯৩টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে মাত্র একটি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এ ভোট নেওয়া হবে।

নগরীর ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের ১৪১ নম্বর কেন্দ্র সরকারি বেগম রোকেয়া কলেজ কেন্দ্রের ছয়টি বুথে ইভিএমে ভোট দিতে পারবেন ২ হাজার ৫৯ জন ভোটার। মঙ্গলবারও ভোটারদের ইভিএমে ভোট দেওয়ার মহড়া (মক ভোটিং) দেওয়া হয়।

সিসি ক্যামেরা তিন কেন্দ্রে

ঝুঁকিপূর্ণ ১০৮টি কেন্দ্রের তিনটিতে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। কেন্দ্রগুলো হলো-২০ নম্বর ওয়ার্ডের সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র, ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের লায়ন্স স্কুল অ্যাণ্ড কলেজ কেন্দ্র এবং ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের সরকারি বেগম রোকেয়া কলেজ কেন্দ্র।

মতামত দিন