আল্লামা হাশেমীর জানাজায় স্বাস্থ্যবিধি মানা হয়নি (ভিডিও)

নিজস্ব প্রতিবেদক:
করোনাকালে বাহ্মণবাড়িয়ার পর এবার স্বাস্থ্যবিধি না মেনে দেশের খ্যাতনামা আলেম আল্লামা কাজী মুহাম্মদ নুরুল ইসলাম হাশেমীর নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হলো। মঙ্গলবার রাতের এই জানাজায় বিপুল সংখ্যক মানুষের সমাগম ঘটে। গতমাসে বাহ্মণবাড়িয়ার এক মাওলানার জানাজায় ব্যাপক লোক সমাগম নিয়ে দেশব্যাপী সমালোচনার ঝড় উঠলেও এ জানাজায় স্বাস্থ্য বিধি মানা নিয়ে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া যায়নি।

মঙ্গলবার রাতে নগরীর বায়েজিদ থানার জালালাবাদ ওয়ার্ডে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত বাংলাদেশের চেয়ারম্যান আল্লামা কাজী মুহাম্মদ নুরুল ইসলাম হাশেমীর নামাজে জানাজায় বিপুল সংখ্যক লোক সমাগম হয় । সেখানে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব না মেনে জানাজার নামাজ সম্পন্ন করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন অনেকে।

মঙ্গলবার (২ জুন) রাত ৯টায় দরবারে হাশেমীয়া আলিয়া শরিফে তার বড় পুত্র শাহজাদা কাজী মুহাম্মদ আবুল বয়ান হাশেমী মরহুমের জানাজার নামাজ পড়ান। আল্লামা হাশেমীর শেষ ইচ্ছা মতে প্রথম দফায় একবারই নামাজের জানাযা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে হাজার হাজার লোকজন জড়ো হয় রাতে। ঠাসাঠাসি করে একজনের সাথে একজন গা লাগিয়ে জানাজার নামাজ আদায় করেন।অনেকের মুখে মাস্কও ছিল না। অথচ মাস্ক না পরলে বিশাল অংকের জরিমানা ও জেল-জরিমানার বিধান রেখে সরকার নতুন করে প্রজ্ঞাপন রাজি করেছিল।

এ বিষয়ে আল্লামা কাজী মুহাম্মদ নুরুল ইসলাম হাশেমী’র নাতি আবু রায়হান মোহাম্মদ ফয়সাল বলেন, স্বাস্থ্যবিধি, সামাজিক দূরত্ব মেনে আমরা নামাজ আদায় করার চেষ্টা করেছি। তবে জানাজার নামাজে অনেক মানুষ উপস্থিত হওয়ায় সেটা পুরোপুরি মানা সম্ভব হয়নি।

বায়েজিদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রিটন সরকার বলেন, জানাযা তিনবারের জায়গায় একবারে সম্পন্ন হওয়াতে একটু সমস্যা হয়েছে। তবে তারা সকলের জন্য হ্যান্ড স্যানিটাইজার, জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটিয়েছেন।

মঙ্গলবার (২ জুন) ভোর পাঁচটার দিকে আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আল্লামা হাশেমী শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি বার্ধক্যজনিত নানা রোগসহ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে শনিবার (৩০ মে) চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। সেখানেই তার মৃত্যু হয়। এর আগে চট্টগ্রামের মেট্টোপলিটন হাসপাতাল এবং ডেলটা হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য কর্তৃপক্ষ তাকে ভর্তি করাননি বলে অভিযোগ রয়েছে।

মতামত দিন