বিএসআরএম কারখানায় দগ্ধ হওয়া আরো ২ শ্রমিকের মৃত্যু

এম মাঈন উদ্দিন,মিরসরাই (চট্টগ্রাম):

মিরসরাইয়ের সোহাপাহাড়ে বিএসআরএম ফ্যাক্টরিতে কাজ করা অবস্থায় লোহার গলিত সীসায় দগ্ধ হওয়া আরো ২ শ্রকিকের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (৬ জুন) মধ্যরাতে মারাত্বক আহত অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের বার্ণ ইউনিট থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপতালে নিয়ে যাওয়ার পথে তারা মারা যান।

মারা যাওয়া শ্রমিকরা হলো মোঃ নজরুল ইসলাম (২৪) এবং মোঃ গিয়াস উদ্দিন (২৪। এর আগে দুর্ঘটনার পর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে আবুল কাশেম নামে শ্রমিক মারা যায়। এ নিয়ে মোট ৩ জন শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। আহত ২ জন বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

বিএসআরএম এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, বিএসআরএম প্লান্টে ঘটে যাওয়া দুর্ঘটনায় আহত ৪ জন শ্রমিককে চমেক থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে নিয়ে যাওয়ার পথে শনিবার মধ্যরাতে কুমিল্লায় মোঃ নজরুল ইসলাম এবং মোঃ গিয়াস উদ্দিনের মৃত্যু হয়। এর আগে চট্টগ্রাম নিয়ে যাওয়ার পথে মরা যায় আবুল কাশেম। আহত আরো ২ শ্রমিক বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিএসআরএম কর্তৃপক্ষ জানায়, আকস্মিক এই দুর্ঘটনার ফলে গুরুতর আহত হয়েছেন প্লান্টে কর্মরত মোঃ মহিউদ্দিন, মোঃ নুর হোসেন মোঃ সিকান্দার, মোঃ নজরুল ইসলাম, মোঃ গিয়াস উদ্দিন এবং মোঃ আবুল কাশেম। দুর্ঘটনার পর তৎক্ষণাৎ তাদের সবাইকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ বার্ন ইউনিটে নেয়া হয় এবং কর্তব্যরত চিকিৎসক আহতদের মধ্যে মোঃ আবুল কাশেমকে মৃত ঘোষণা করেন।

আহতদের মধ্যে মোঃ সিকান্দারকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসার পর হাসপাতাল থেকে বাসায় পরিচর্যায় থাকার নির্দেশ দেয়া হয় এবং অন্যান্যদের হতাহতের তীব্রতার কারণে তাৎক্ষণিকভাবে ঢাকা মেডিকেল কলেজ বার্ন ইউনিটে স্থানান্তর করা হয়েছে।পরবর্তীতে মোঃ নজরুল ইসলাম এবং মোঃ গিয়াস উদ্দিন শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ।

অপ্রত্যাশিত এই পরিস্থিতি ও দুর্ঘটনার কারণ উদ্ঘাটন করতে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে । বিএসআরএম কতৃপক্ষ এটি পুরো বিএসআরএম পরিবারের জন্য দুঃখের দিন জানিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জ্ঞাপন করেছে এবং হতাহতদের প্রয়োজনীয় সহায়তার প্রতিশ্রুতি জানিয়েছে।

মতামত দিন