পাহাড়ে ত্রাণ সহায়তা অব্যাহত রেখেছে সেনাবাহিনী

ইকবাল হোসেন, রাঙামাটি ||

চীনের উহান শহরে জন্মনেয়া নোভেল করোনা ভাইরাস বিশ্বের বিভিন্ন দেশের পাশাপাশি বাংলাদেশেও তান্ডব চালিয়ে যাচ্ছে। এই মরনঘাতী ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেশে দেখা দেওয়ার পরপরই সরকারের বিচক্ষণতায় দেশের মানুষকে রক্ষা করতে ২৬শে মার্চ হতে সারাদেশে অঘোষিত লকডাউন ঘোষণা দেওয়া হয়।

অঘোষিত লকডাউন চলাকালীন সময় থেকেই বাংলাদেশ সেনাবাহিনী বেসামরিক প্রশাসনকে সহযোগিতার পাশাপাশি মানবিক দিক বিবেচনায় কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায় মানুষের জন্য ভিন্নধর্মী কার্যক্রম মন ছুঁয়েছে পাহাড়ের সর্বস্তরের মানুষের। পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতে সেনাবাহিনী কর্মহীন হয়ে পড়া দুস্থদের পাশে থাকার কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

পার্বত্যবাসীর হৃদয়ে গাঁথা কার্যক্রম গুলোর মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১মিনিটের বাজারের মতো কর্মসূচী বাস্তবায় করেছে, তারা নিজেদের রেশন বাঁচিয়ে পর্যন্ত পায়ে হেঁটে কাঁধে করে বয়ে নিয়ে গিয়ে দূর্গম পাহাড়ে কর্মহীনদের বাড়ি বাড়ি ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দিয়ার দৃশ্য চোখে দেখার মত।

এদিকে রাঙামাটির অসহায় উপজাতী ও বাঙালী পরিবারের ঘরে ঘরে ত্রান সহায়তা পৌঁছে দিয়েছে সেনাবাহিনী। মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় ভেদভেদী থেকে এই ত্রান কার্যক্রম শুরুকরে শহরের তবলছড়ি, আসামবস্তি এবং মুসলিমপাড়া এলাকার অসহায়-দুস্থ পরিবারের ঘরে ঘরে গিয়ে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দেন সেনা সদস্যরা। জিওসি ২৪ পদাতিক ডিভিশনের নির্দেশে রাঙামাটি রিজিয়নের তত্ত্বাবধানে এই সেবা কার্যক্রমে নেতৃত্ব দেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী রাঙামাটি সদর জোনের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মো. রফিকুল ইসলাম, পিএসসি। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন রাঙামাটি জোনের জেডএসও মেজর মো. নাজমুল হাসান।

ত্রাণ বিতরণ কালে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তার পাশাপাশি সাধারণ জনগণের মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, জনসচেতনতা গড়ে তোলাসহ বিভিন্ন কর্মকান্ড পরিচালনার পাশাপাশি মানবিক বিষয় বিবেচনায় সেবা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে দুস্থ, অসহায়, নিম্ন আয়ের দরিদ্র মানুষের মাঝে ত্রান বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

এসময় উপজাতী ও বাঙালী অসহায় ও দুস্থ পরিবারের মাঝে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে স্বাস্থ্যবিধি মেনে উক্ত খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

মতামত দিন