দুই মেয়েকে খুনের পর বাবার আত্নহত্যার চেষ্টা

পটিয়া প্রতিনিধিঃ

পটিয়া উপজেলার কাশিয়াইশ ইউনিয়নে নানার বাড়িতে পিতার হাতে দুই মেয়েকে হত্যা করে পিতা নিজেও আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন এমন হওয়ার পাওয়া গেছে।

আজ বুধবার (১ জুলাই) ভোর রাতে কাশিয়াইশ ইউনিয়নে ৮নং ওযাডের ভান্ডারগাও এলাকায় প্রভাত বড়ুয়া বাড়ির পাশে এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে।

দুই মেয়েকে গলা টিপে হত্যার পর পিতা নিজেও বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায় বলে স্হানীয়রা জানান।

নিহত দুই মেয়ে হল টুকু বড়ুয়া (১৪) ও ছোট মেয়ে নিশু বড়ুয়া (১০) বছর। তারা দুজনের ৮ম ও ৪র্থ শ্রেণীতে পড়াশোনা করে কাশিয়াইশ সরকারি প্রথমিক বিদ্যালয়ে। তাদের পিতা মোখেন্দু বড়ুয়া।

পটিয়া থানার ওসি বোরহান উদ্দিন জানান, দুটি খুনের ঘটনা ঘটেছে আমি পোর্স নিয়ে বর্তমানে ঘটনাস্থলে আছি । মেয়ে দুটির বাবা মুখেন্দু বড়ুয়ার শাশুরবাড়ির লোকজনের সাথে কথা বলে জানতে পারি তিনি একটি জাহাজে চাকরি করতেন লকডাউনের সময় তার চাকরি হারান। চার বছর আগে তার স্ত্রী মারা যাওয়ায় পর হতে মেয়ে দুটিকে নিয়ে সে শাশুর বাড়িতে থাকতেন। তবে সে এখনো অজ্ঞান অবস্থায় আছে। মেয়ে দুটির লাশ ও তাকে নিয়ে আমরা থানায় চলে আসব। এরপর আসল ঘটনা উদঘাটন করে প্রয়োজনিয় আইনানুগ ব্যবস্থা নিব।

এদিকে কাশিয়াইশ ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নং ওয়ার্ডের সদস্য মো. ইউসূফ জানান, মোখেন্দু বড়ুয়া জাহাজে চাকুরী করেন। ৪ বছর আগে তার স্ত্রী মারা যান। দুই মেয়েকে নানার বাড়িতে থাকতো। করোনা পরিস্থিতির কারণে লকডাউন হওয়ায় ২ মাস আগে তিনি গ্রামে এসে শশুর বাড়ীতে থাকতো। আজ ভোর রাতে কি কারণে তিনি দুই মেয়েকে হত্যা করে নিজেও বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন তা এখনো জানাজানি হয়নি। ভোরে আমি খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসেছি। পুলিশকে খবর দিয়েছি। দুই মেয়ের লাশ ও পড়ে আছে। মোখেন্দু বড়ুয়াও অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে আছেন।

মতামত দিন