বোয়ালখালীতে ৮ মাস ১১ দিন পর ধর্ষণের মামলা


বোয়ালখালী প্রতিনিধি : বোয়ালখালীতে ধর্ষণের শিকার হয়ে (১৭) বছরের এক কিশোরী অন্তসত্ত্বা হওয়ার ঘটনার ৮ মাস পর মামলা হয়েছে। ৭ জুলাই মঙ্গলবার রাত ২টার সময় কিশোরীর মা বাদী হয়ে ধর্ষক মিন্টু চন্দ্র (২২) কে প্রধান, বাবা বাঁশি চন্দ্রকে ২নং, মা ছেনু চন্দ্রকে ৩নং আসামি করে বোয়ালখালী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। বর্তমানে কিশোরী ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। অন্তঃসত্ত্বা মেয়ের জুলাই সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে কিশোরীর মামলা সূত্রে জানা গেছে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, বোয়ালখালী উপজেলার ৬নং পোপাদিয়া ইউনিয়নে ৬নং ওয়ার্ডে কাহার পাড়া। গত বছরের ২৭ অক্টোবর রাতে কিশোরীকে ঘরে রেখে বাবা ও মা কালিপুজোয় পূজা দিতে যায়। সেই রাত সাড়ে ১২টার দিকে কিশোরীকে একা পেয়ে পার্শ্ববর্তী বাড়ীর বাঁশি চন্দ্রের ছেলে মিন্টু চন্দ্র ঘরে ঢুকে জোর করে তাকে ধর্ষণ করে। কিশোরী চিৎকার করার চেষ্টা করলে ধর্ষণকারী মিন্টু চন্দ্র তার মুখ চেপে ধরে। পরে ফেব্রুয়ারি মাসে কিশোরীর শারীরিক অবস্থার পরিবর্তন হতে শুরু হলে ঘটনাটি মিন্টুর পরিবারকে জানায় কিশোরীর পরিবার।

ধর্ষণকারী মিন্টুর বাবা বাঁশি চন্দ্র কিশোরীকে ছেলের বউ করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে সময়ক্ষেপণ করতে থাকলে ঘটনাটি কিশোরীর পরিবার স্থানীয় এস এম জসিম উদ্দিনকে জানায়। চেয়ারম্যান এস এম জসিম উদ্দিনকে ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে আপস-মীমাংসা করবেন বলে আশ্বস্ত করেন। পরে দীর্ঘ সময়ক্ষেপণের কারণে কিশোরীর মা বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন।

বোয়ালখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল করিম বলেন, অভিযোগ পেয়ে ৭ জুলাই রাতে মামলা রজু করা হয়েছে। আসামি গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। মঙ্গলবার সকালে কিশোরীকে জবানবন্দির জন্য আদালতে পাঠানো হয়েছে। তবে স্থানীয়ভাবে আপস-মীমাংসার নামে এ ধরনের ঘটনার দীর্ঘ সময়ক্ষেপণ করাটা দুঃখজনক। এসব ঘটনা কোনোভাবে স্থানীয়ভাবে আপসযোগ্যও না।

মতামত দিন