সিঙ্গাপুরে জাতীয় নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দলের জয়

সিঙ্গাপুরের জাতীয় নির্বাচনে ক্ষমতাসীন পিপল’স অ্যাকশন পার্টি (পিএপি) নিরঙ্কুস সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে।

শুক্রবার (১০ জুলাই) অনুষ্ঠিত ১৩তম জাতীয় নির্বাচনে পিএপি সংসদের ৯৩টি আসন পেয়ে পুনরায় নির্বাচিত হয়েছে। অন্যদিকে ওয়ার্কার্স পার্টি (ডব্লিউপি) পেয়েছে ১০টি আসন।

করোনাভাইরাসের মধ্যেও সিঙ্গাপুরের জনগন উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে ভোট দিয়েছে। সন্ধ্যা পর্যন্তও বিভিন্ন কেন্দ্রের বাইরে ভোটারদের ভীড় ছিলো। সে কারণে ভোট দেওয়ার সময় ২ ঘণ্টা বাড়ানো হয়। যা দেশটির নির্বাচনের ইতিহাসে প্রথমবার ঘটলো। রাত ১০টায় শেষ হয় ভোটগ্রহণ।

এরপর গণনার কাজ শুরু হয়। সেখানে ওয়ার্কার্স পার্টিকে বড় ব্যবধানে হারিয়ে ক্ষমতায় টিকে যায় পিপল’র অ্যাকশন পার্টি। এই দলটি ১৯৫৯ সাল থেকে ক্ষমতায় রয়েছে। ১৩তম সাধারণ নির্বাচনে তাদের পক্ষে ৬১ শতাংশ ভোট পড়ে। যা ২০১১ সালের পর সর্বনিম্ন। সেবার পড়েছিল মাত্র ৬০ শতাংশ ভোট।

ভোট গণনা শেষে সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী লি সেইন লুং বলেন, ‘আমরা নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছি। জনগণের সমর্থন পেয়েছি। যদিও পপুলার ভোটের শতাংশ খুব একটা বেশি না।’

বিরোধী দল বিশাল ব্যবধানে হারলেও তাদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ আসন পেয়েছে। আগের সাধারণ নির্বাচনে ওয়ার্কার্স পার্টি পেয়েছিল মাত্র ৬টি আসন। এবার পেয়েছে ১০টি আসন। যা সিঙ্গাপুরে ১৯৬৮ সালে নির্বাচন শুরু হওয়ার পর তাদের পাওয়া সর্বোচ্চ আসন।

মতামত দিন