জমি ভরাট করে চরম্বায় পানি চলাচলের রাস্তা দখলের অভিযোগ: এলাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি

মো. এরশাদ অালম, লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম):

চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার চরম্বা ইউনিয়নের বাইয়ার পাড়া এলাকায় জমি ভরাট করে পানি চলাচলের রাস্তা জোরপুর্বক দখলের অভিযোগ উঠেছে।যার কারণে পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্হা না রাখার কারণে চরম বিপাকে পড়েছে ওই এলাকার অনেক ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার।

সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার চরম্বা ইউনিয়নের বাইয়ার পাড়াস্হ আমজাদিয়া নামের একটি সড়ক রয়েছে। গ্রামীণ জনপদে এসড়কটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এসড়ক নিয়ে প্রতিদিন সিএনজি ও অটোরিকশা চলাচল করে এবং শতশত মানুষ এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করে। সড়কটি অনেক পুরনো। সড়কের সোয়াজান হাজির বাড়ী হইতে প্রায় অর্ধ কিলোমিটার সড়কে পানি বন্দি থাকে।

রাস্তার একপার্শ্বে বাইয়ার পাড়া এলাকার নুরুল কবির উঁচু করে মাটি দিয়ে জায়গা ভরাট করে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে । অন্য পার্শ্বে ইউসুফ আলী,নুরুল আলমের পানি ভর্তি পুকুর ডোবা রয়েছে। সড়কের এই স্হানে পানি চলাচলের জন্য বিগত ২৫বছর পুর্বে কালভার্ট দ্বারা পানি চলাচল করতো। ইতিমধ্যে ওই স্হানে পানি চলাচলের দুটি কালভার্ট বন্ধ করে দিয়েছে।যার কারণে পানি চলাচলে কোন জায়গা না থাকায় রাস্তায় পানি জমে থাকে । জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে।
ওই এলাকায় কয়েকজন প্রভাবশালী মিলে দীর্ঘদিনের পানি চলাচলের কালভার্ট বন্ধ করে দেয়। রীতিমত বর্ষার মৌসমে এলাকার মানুষকে কষ্ট পোহাতে হচ্ছে। ভারী বর্ষণের কারণে অনেক বাড়িতে পানি ঢুকে ঘরবাড়ি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

স্হানীয় এলাকার বাসিন্দা হারেসের স্ত্রী শাহিন আকতার জানান, সড়কটি ঘেষে জায়গা ভরাট করে নুরুল কবির, ইউসুফ আলী।তারা সড়কের ওই স্হানে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে পানি চলাচলের ২টি কালভার্টের মুখ বন্ধ করে দেয়। পানি চলাচলের কোন ব্যবস্হা না থাকার কারণে আমাদের বাড়িঘরে বৃষ্টি পানি ঢুকে যাচ্ছে। আমরা অতি কষ্টে চলাচল করতে হয়।

এলাকার বাসিন্দা নবিজ খাঁতুন জানান, তাকে শ্বশুর বাড়িতে আসার পর থেকে দেখে আসছে কালভার্ট দিয়ে পানি চলাচল করে কিন্তু কালভার্টের মুখ বন্ধ করে দেওয়ায় পানিগুলো আমাদের বাড়িতে ঢুকে পড়েছে।

এলাকার বাসিন্দা মোকতার ও দেলোয়ার জানান,সড়কটি দিয়ে তাদের প্রতিদিন যাতায়াত করতে হয়। কিন্তু সড়কের পার্শ্বে কালভার্ট গুলোর মুখ বন্ধ করায় গাড়ি নিয়ে এবং সাধারণভাবে যাতায়াত অনেক কষ্টের সম্মুখিন হতে হচ্ছে ।

স্হানীয় ইউপি সদস্য মুহাম্মদ আকতার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন,সড়কের ওই স্হানে অর্ধ কিলোমিটার জায়গায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে কালভার্ট গুলোর মুখ বন্ধ করায় এক পাশে বাড়ি অন্য পাশে পানি ডোবার কারণে আমজাদিয়া সড়কে বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে । তিনি কয়েকবার পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্হা করতে বিষয়টি জায়গার মালিকদের কে অবহিত করলে তার কথা অমান্য করেছেন। তিনি সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্হা গ্রহণের জোর দাবী জানান।

চরম্বা ইউপির চেয়ারম্যান মাস্টার মুহাম্মদ শফিকুর রহমান জানান,বিষয়টি আমাকে ইউএনও স্যার জানিয়েছেন। তিনি পরিদর্শন করে পানি চলাচলের ব্যবস্হা গ্রহণের প্রতিশ্রতি দেন।

লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার(ইউএনও) তৌছিফ আহমেদ জানান,বিষয়টি আপনার মাধ্যমে জেনে চরম্বা ইউপি চেয়ারম্যান কে দ্রুত পানি চলাচলের ব্যবস্হা গ্রহণের জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয়।
অন্যদিকে,প্রতিপক্ষ নুরুল কবির ও ইউসুফ আলী জানান,তারা ওই স্হানে চলাচলের রাস্তায় পানি যাওয়ার কালভার্ট বন্ধ করেন নি বলে দাবী করেন।
তবে,স্হানীয়রা দ্রুত সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে সড়কের পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্হা গ্রহণের জন্য হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

মতামত দিন