চট্টগ্রাম আদালতে বিচারক শূন্যতার বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া হবে- আইনমন্ত্রী

প্রতিবেদক: চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির কার্যক্রম সফটওয়ার ডিজিটালাইশনের উদ্বোধন করা হয়েছে। চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির একাউন্টিং, বিলিং ও ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যারের উদ্বোধন করেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক এম.পি।এ সময় মন্ত্রী বলেন,  চট্টগ্রাম আদালতে বিচারক শূন্যতার বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া হবে। সেই সাখে ইলেকট্রিক সাব স্টেশন স্থাপনের বিষয়ে আশ্বাস দেন তিনি। চট্টগ্রামে হাইকোর্ট সার্কিট বেঞ্চ স্থাপনের বিষয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সহিত আলাপ করবেন বলে জানান মন্ত্রী।

আজ সোমবার  আইনজীবী সমিতির সভাপতি সৈয়দ মোক্তার আহমদ এর সভাপতিত্বে এবং সমিতির সহসাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ কবির হোসাইন এর সঞ্চালনায় আইনজীবী সমিতির অডিটরিয়ামে এ উপলক্ষে এক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক এম.পি, উদ্ভোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী ব্যারিষ্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এম.পি, বিশেষ অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালী যুক্ত ছিলেন বাংলাদশের অ্যার্টনী জেনারেল এ.এম.আমিন উদ্দিন, আরোও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ বার কাউন্সিল সদস্য অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী, চট্টগ্রামের জেলা ও দায়রা জজ মো. ইসমাইল হোসেন, চট্টগ্রামের মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমান।

উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সমিতির সিনিয়র সহসভাপতি শেখ মো. ছাবেদুর রহমান, সহসভাপতি মো. আজিজুল হক চৌধুরী, অর্থ সম্পাদক মঈনুল আলম চৌধুরী (টিপু), পাঠাগার সম্পাদক মো. আলী আকবর (সানজিক), সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া সম্পাদক রুনা কাশেম, নির্বাহী সদস্য যথাক্রমে এ.এস.এম. রিদওয়ানুল করিম, তানজিন আক্তার সানি, মো. মেজবাহ উদ্দিন, মো. ওমর ফারুক, মোহাম্মদ নাজমুল ইসলাম, মো.মনজুর হোসেন, মুহাম্মদ শফিউল আজম বাবর, শেখ তাপসী তহুরা, নাসরিন আক্তার চৌধুরী, মো. রবিউল আলমসহ বিপুল সংখ্যক বিজ্ঞ আইনজীবী। ইভিশন সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানের পক্ষে মো. নাজিম উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এ.এইচ.এম. জিয়াউদ্দিন, তিনি আইনজীবীদের সফটওয়্যার ব্যবহারের উপযোগীতা এবং চট্টগ্রাম আদালতে বিচারক শূণ্যতা, চট্টগ্রামে হাইকোর্ট বিভাগের সার্কিট বেঞ্চ স্থাপন, ইলেকট্রিক সাব স্টেশন ও আইনজীবীদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আইন মন্ত্রী ও শিক্ষা উপমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। সমিতির একাউন্টিং ও বিলিং সফটওয়্যার নিয়ে সমিতির তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক মো. ইমরুল হক মেনন তাঁর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য বলেন একাউন্টিং এবং বিলিং সফটওয়্যারের কারনে সমিতির বিজ্ঞ সদস্যরা খুব সহজেই তাদের চেম্বারের মাসিক চাঁদা, বিদ্যুৎ বিল, বার কাউন্সিল চাঁদা, অন্যান্য বিল অনলাইনের মাধ্যমে পরিশোধ করতে পারবেন। অদ্য হতে সমিতির সর্ম্পূণ আয়-ব্যয় হিসাব অনলাইনের মাধ্যমে পরিচালিত হবে। সমিতির সদস্যদের দীর্ঘদিনের প্রানের দাবী বিলিং সফটওয়্যার উদ্ধোধনের মাধ্যমে পূরণ হয়েছে।

সমিতির তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদকের উদ্যোগে সমিতির পাঠাগার সম্পাদক মো. আলী আকবর সানজিকের পরিচালনায় সমিতির সাধারণ সম্পাদকের তত্ত্বাবধানে ও কার্যনির্বাহী পরিষদের সহযোগীতায় নির্মিত আইনজীবী সমিতির ১২৭ বছরের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস নিয়ে একটি প্রামান্য চিত্র প্রদর্শিত হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে করোনাকালীন সময়ে সমিতির যে সকল বিজ্ঞ সদস্যদের আমরা চিরতরে হারিয়েছি তাঁদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্য ভার্চুয়ালী যুক্ত হয়ে আইন মন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতি ঐতিহ্যর দিক দিয়ে সব সময় অগ্রগামী। তিনি চট্টগ্রাম আদালতে বিচারক শূন্যাতার বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলে জানান। সেই সাখে ইলেকট্রিক সাব স্টেশন স্থাপনের বিষয়ে আশ্বাস দেন। এছাড়া প্রস্তাবিত ভূমি আইন সংস্কার বিষয় নিয়ে যে মত বিরোধ সৃষ্টি হয়েছে বর্তমান সরকার সে লক্ষ্যে কাজ করছে। চট্টগ্রামে হাইকোর্ট সার্কিট বেঞ্চ স্থাপনের বিষয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সহিত আলাপ করবেন বলে জানান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অ্যার্টনী জেনারেল এ.এম. আমিন উদ্দিন ভার্চুয়ালী যুক্ত হয়ে বলেন, একাউন্টিং ও বিলি সফটওয়্যার উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতি প্রমাণ করল তাঁদের চিন্তা চেতনা অ-ভিন্ন। সমিতির সদস্যদের কল্যাণে বিলিং সফটওয়্যার খুব সুফল বয়ে নিয়ে আসবে। সুপ্রীম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ও চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির কার্যক্রম আইনজীবীদের মান মর্যাদা রক্ষায় এক ও অভিন্ন।

উদ্বোধনী বক্তব্য ব্যারিষ্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, আইনজীবী সমিতির ১২৭ বছরের শত ঐতিহ্য ও বীরত্বের এক সাহসী ঠিকানা। অনেক সমাজ বিপ্লবী ও রুপকার এ প্রতিষ্ঠানে জন্ম নিয়েছে। চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতি সমৃদ্ধি, ঐতিহ্য ও বীরত্বে এবং আইনি প্রজ্ঞার দিক থেকে অদ্বিতীয়। কিন্তু মেধা, মননশীলতা এবং পারিপার্শ্বিক সকল দিক থেকে এ প্রতিষ্ঠান শ্রেষ্ঠ বলে আমি মনে করি। স্বাধীনতা পূর্ব এবং স্বাধীনতা পরবর্তী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের প্রেক্ষাপট তৈরীতে আইনজীবীরা অগ্রণী ভ’মিকা রেখেছেন। এই সমিতি সর্বক্ষেত্রে তার সুনাম অর্জন করেছে। সমিতি ইতিমধ্যে যে ভবন গড়ে তোলার পদক্ষেপ নিয়েছে আমি সর্বাতœক সহযোগীতা করব পাশে থাকার। আজকের অনুষ্ঠানে উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত হতে পেরে আমি নিজেকে ধন্য মনে করছি। সেই সাথে আইনজীবীদের বিভিন্ন দাবীর বিষয়ে আইন মন্ত্রীর সাথে কথা বলবেন বলে জানান।

মতামত দিন