শিক্ষানবিশদের দাবি পূরণে ৪৮ ঘণ্টা সময় নিলেন আইনমন্ত্রী

ঢাকা: করোনার কারণে লিখিত পরীক্ষা মওকুফ করে এমসিকিউ উত্তীর্ণ প্রায় ১৩ হাজার শিক্ষার্থীকে ভাইভার মাধ্যমে আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্তির সিদ্ধান্ত নিতে ৪৮ ঘণ্টা সময় নিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) সন্ধ্যায় রাজধানীর বনানীতে আইনমন্ত্রীর বাসার সামনে অবস্থান নেওয়া শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের মন্ত্রী এ আশ্বাস দেন।

মন্ত্রীর আশ্বাসে ইতোমধ্যে তার বাসভবন থেকে সরে আসে শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা। এর আগে দুপুর তিনটা থেকে আইনমন্ত্রীর বাসার সামনে আইনের এই শিক্ষার্থীরা অবস্থান কর্মসূচি পালন করছিলেন।

এর আগে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে প্রিলিমিনারি (এমসিকিউ) পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের লিখিত ছাড়া শুধু মৌখিক পরীক্ষা (ভাইভা) নিয়ে আইনজীবী হিসেবে অন্তর্ভুক্তির দাবিতে আইনমন্ত্রীর গুলশানের বাসার সামনে অবস্থান নেন শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা। দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সাবেক এই আইন শিক্ষার্থীরা শাহবাগ থেকে উঠে গিয়ে আইনমন্ত্রীর বাসার সামনে জড়ো হয়েছেন।

শিক্ষানবিশ আইনজীবীরা জানান, করোনা পরিস্থিতি দিন দিন ভয়াবহ পরিস্থিতির দিকে যাচ্ছে। এর মধ্যে প্রায় ১৩ হাজার শিক্ষার্থীর লিখিত পরীক্ষা নেওয়ার চেষ্টা করেও বার কাউন্সিল ব্যর্থ হয়েছে। দীর্ঘ তিন বছর পর এমসিকিউ পরীক্ষা হলেও লিখিত ও ভাইভা পরীক্ষা না নেয়ায় আমরা বেকার দিনযাপন করছি।

শিক্ষার্থীরা বলেন, করোনা বিবেচনায় আমাদের যৌক্তিক দাবি মেনে নিয়ে লিখিত পরীক্ষা মওকুফ করতে হবে। একইসঙ্গে ভাইভার মাধ্যমে মেধা যাচাই করে শিক্ষানবিশদের আইনজীবী সনদ প্রদান করতে হবে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এই অবস্থান কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলেও জানিয়েছেন তারা।

জানা যায়, প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ জন এমসিকিউ উত্তীর্ণ সহপাঠী কেউ স্ট্রোক করে, কেউ করোনা আক্রান্ত হয়ে আইনজীবী হওয়ার স্বপ্নপূরণের পূর্বেই মৃত্যুবরণ করেছেন। বর্তমানে প্রায় ৫ শতাধিক শিক্ষানবিশ আইনজীবী করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

২০২০ সালে প্রায় ৭০ হাজার শিক্ষানবিশ আইনজীবীর মধ্যে এমসিকিউতে উত্তীর্ণ হন আট হাজার ৭৬৪ শিক্ষার্থী। এ নিয়ে লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের অপেক্ষায় আছেন মোট ১২ হাজার ৮৫৮ জন সনদপ্রত্যাশী।

মতামত দিন