ইসলামিক স্টাডিজের পরীক্ষায় প্রথম হলেন হিন্দু শিক্ষার্থী

ইসলাম ধর্ম বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক পরীক্ষায় মুসলিম সব শিক্ষার্থীকে পেছনে ফেলে প্রথম স্থান দখল করলেন এক হিন্দু শিক্ষার্থী। ঘটনাটি ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের।

ইসলামিক স্টাডিজ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কমন এন্ট্রান্স টেস্টে অংশ নিয়ে প্রথম হন শুভম যাদব নামের এক শিক্ষার্থী। অমুসলিম ও কাশ্মীরের বাইরে কোনো ছাত্র হিসেবে প্রথমবারের মতো এই কৃতিত্ব অর্জন করেছেন শুভম।

হিন্দু ধর্মাবলম্বীর এই শিক্ষার্থীর বাড়ি রাজস্থানের আলওয়ারে। যেখানে ২০১৭ সালে সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ ছড়িয়ে পেহলু খান নামে এক গবাদি পশুর ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। সেই আলওয়ারের বাসিন্দা হয়ে শুভম ইসলামকে জানতে এই বিষয়ে স্নাকোত্তর করতে চাইছেন।

বর্তমানে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি নিয়ে পড়াশোনা করছেন শুভম৷ ইসলামিক স্টাডিজে স্নাকোত্তর করতে তাকে ২ বছর কাশ্মীরে থাকতে হবে। যা ভেবে তার পরিবারের সদস্যরা উদ্বিগ্ন।

তবুও থেমে যাওয়ার নয় শুভম। শুভম অবশ্য বিষয়টি নিয়ে তেমন চিন্তিত নয়। তিনি জানান, এর আগেও কাশ্মীরে গিয়েছেন। সেখানকার মানুষও যথেষ্ট বন্ধুত্বপূর্ণ বলে মনে হয় তার।

অমুসলিম হয়ে ইসলাম ধর্মের ওপরে স্নাতকোত্তর করতে এতো আগ্রহী কেন শুভম?

তিনি জানান, ইসলাম ধর্মের গভীরে গিয়ে জানার জন্যই তিনি এই বিষয়টি বেছে নিয়েছেন।

শুভম বলেন, আমার মনে হয়, ইসলাম ধর্মটিকেই সব থেকে বেশি ভুল বোঝে মানুষ। বিশ্বের অনেক রাষ্ট্রনেতাই এই ধর্ম নিয়ে নিজেদের মতামত জানিয়েছেন। আর তা থেকেই এই বিষয়ের উপরে স্নাতকোত্তর করার কথা আমার মাথায় আসে।

তাছাড়া তার বাবা-মাও তাকে ইসলামিক স্টাডিজ নিয়ে পড়তে উৎসাহ দিয়েছেন বলে জানান শুভম।

শুভম এখন দুই ধর্মের মধ্যে সেতুবন্ধনের কাজ করতে চান৷ অবশ্য ভবিষ্যতে আমলা হিসেবে কাজ করতেও আগ্রহী তিনি।

তথ্যসূত্র: নিউজ এইটিন

মতামত দিন