চট্টগ্রাম আদালতে ব্যারিস্টার পরিচয়ে প্রতারনা, অবশেষে ধরা

স্টাফ রিপোর্টার: কখনো ব্যারিস্টার, কখনো সাংবাদিক। মামলা করিয়ে দেবেন, আসামি ধরিয়ে দেবেন, খালাস করিয়ে দেবেন, মামলা নিষ্পত্তি করিয়ে দেবেন কিংবা নির্বাচনী বৈতরনী পার হতে সংবাদ ছাপিয়ে দিবেন— এ ধরনের নানান প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিভিন্ন মানুষের কাছে দীর্ঘদিন ধরে টাকা আত্মসাত করেন নেন তিনি। এভাবেই দীর্ঘদিন ধরে চট্টগ্রাম আদালতে ঘুরে ঘুরে প্রতারণা করছিলেন সেবাপ্রার্থীদের সাথে। নানান পরিচয়ে পরিচয় দিয়ে এভাবেই চলছিল তার প্রতারনা।

অবশেষে আইনজীবী সমিতির টাউট বিরোধী অভিযানে ধরা পড়ে যান তিনি।

চট্টগ্রাম আদালতে ব্যারিস্টার পরিচয় দিয়ে বেড়ানো এই ভূয়া আইনজীবীর নাম কামরুল ইসলাম হৃদয়। তাকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করেছেন চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির নেতৃবৃন্দ।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির দূর্নীতি দমন ওটাউট উচ্ছেদ কমিটির নেতৃত্বে ধরা পড়ে এই ভুয়া আইনজীবী।

আইনজীবী সমিতির টাইট উচ্ছেদ কমিটির সদস্যরা তাদের ফেসবুক পোষ্টে জানান, ’নিজেকে ব্যারিষ্টার হিসাবে নিজেকে পরিচয় দিয়ে বেড়ান তিনি।উনাকে ধরার জন্য অনেক গুপ্তচর দিয়ে অদ্য ধরতে সামর্থ্য হই।
উনি ই সেই ভুয়া ব্যারিস্টার কামরুল ইসলামহৃদয়।
যাকে অনেক দিন ধরে আমরা টাউট উচ্ছেদ কমিটি হন্যে হয়ে খুজছিলাম। আলহামদুলিল্লাহঅবশেষে আজকে চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির দূর্নীতি দমন ওটাউট উচ্ছেদ কমিটি কর্তৃক ধৃত।
সহযোগিতায় ছিলেন এডভোকেট তোফাজ্জল হোসেন ও তার ভুক্তভোগী কিছু ক্লাইন্ট যারা অক্লান্ত পরিশ্রম করে প্রায় ৪ ঘন্টা ধরে তার পিছু নিয়ে তাকে ধরতে সক্ষম হয়েছে।’

এদিকে সমিতির সহ-সাধারন সম্পাদক এডভোকেট কবির হোসাইন এ ঘটনায় সমিতির পক্ষে মামলা দায়ের করেছেন বলে জানান।

ধরা পড়া ভূয়া আইনজীবীকে আটকের পর সে ‘আইনজীবী নয়, টাউট’ বলে স্বীকার করে।

 

মতামত দিন