লামা থানার আনন্দ উদযাপন

লামা থানার আনন্দ উদযাপন অনুষ্ঠানের শুরুতে বর্ণাঢ্য র‌্যালীর আয়োজন করা হয়।

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, লামা
ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ পালন ও বাংলাদেশ এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের চূড়ান্ত সুপারিশ প্রাপ্তিতে আনন্দ উদযাপন করেছে বান্দরবানের লামায় থানা পুলিশ।

রবিবার (০৭ মার্চ) বিকালে থানা চত্বরে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন থানায় ইনচার্জ মো. মিজানুর রহমান মিজান।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির হিসাবে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম পুলিশ সুপার মো. সাইদুর রহমান (পিপিএম সেবা)।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ পৃথিবীর কালজয়ী ভাষণগুলোর অন্যতম। পরাধীনতার শৃঙ্খল ভেঙ্গে মুক্তিকামী জনগণকে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে সেই ভাষণ ছিল এক মহামন্ত্র। একটি ভাষণ কীভাবে গোটা জাতিকে জাগিয়ে তোলে, স্বাধীনতার জন্য মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে উৎসাহিত করে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ তার অনন্য উদাহরণ।

বক্তারা আরো বলেন, স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশকে একটি সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলায় পরিণত করাই ছিল বঙ্গবন্ধুর আজীবনের লালিত স্বপ্ন। মহান এ নেতার সে স্বপ্ন পূরণে অব্যাহত প্রচেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। বাংলাদেশকে ২০৪১ সালে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘রূপকল্প-২০২১’ ও ‘রূপকল্প-২০৪১’ ঘোষণা করেছেন। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর সন্ধিক্ষণে এসব কর্মসূচি বাস্তবায়নে দলমত-নির্বিশেষে সকলকে নিজ-নিজ অবস্থান থেকে অবদান রাখতে হবে।

এসময় অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, লামা পৌরসভা মেয়র মো. জহিরুল ইসলাম, বান্দরবান জেলা পরিষদ সদস্য শেখ মাহবুবুর রহমান, ফাতেমা পারুল, ভাইস চেয়ারম্যান মো. জাহেদ উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান বাথোয়াইচিং মার্মা, সাংগঠনিক সম্পাদক প্রদীপ কান্তি দাশ, আজিজনগর ইউপি চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন কোম্পানি, রূপসী পাড়া চেয়ারম্যান ছাচিং প্রূ মার্মা সহ প্রমুখ। এছাড়া অনুষ্ঠানে, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, সাংবাদিক ও জনপ্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ ও ইউনেস্কো কর্তৃক স্বীকৃতির ভিডিও দেখানো হয়।  অনুষ্ঠানে ৭ই মার্চ উপলক্ষে কেক কেটে আনন্দ উদযাপনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন অতিথিরা। পরে পরিবেশিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

মতামত দিন