বাংলাদেশিদের আরব আমিরাত প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

করোনাভাইরাসের প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় বাংলাদেশ, নেপাল, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার নাগরিকদের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। আরব আমিরাতের নাগরিক, কূটনৈতিক মিশন, সরকারি প্রতিনিধি, গোল্ডেন ভিসাধারী এবং ব্যবসায়ী ছাড়া সবার প্রবেশ নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে দেশটি। আজ সোমবার আমিরাত কর্তৃপক্ষ এ ঘোষণা দিলেও, নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে আগামী ১২ মে থেকে।

সোমবার (১০ মে) দেশটির ন্যাশনাল ইমারজেন্সি অ্যান্ড ডিজেস্টার ম্যানেজমেন্ট অথরিটি এবং সিভিল অ্যভিয়েশন কর্তৃপক্ষ এই নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দিয়েছে।

সংস্থা দুটি টুইট বার্তায় লিখেছে, ‘বাংলাদেশ, পাকিস্তান, নেপাল এবং শ্রীলঙ্কার যাত্রীদের আমিরাত প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হচ্ছে। এসব দেশের জাতীয় ও বিদেশি এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট চলাচল বন্ধ থাকবে। এমনকি অন্য দেশ হয়েও এসব দেশের যাত্রীরা আমিরাত প্রবেশ করতে পারবে না।’

তবে সংযুক্ত আরব আমিরাত হয়ে এসব দেশ ব্যতিত অন্যান্য স্থানে চলাচলকারী ট্রানজিট ফ্লাইটগুলো এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবে। দেশটির সংবাদমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদন অনুযায়ী আগামী ১২ মে দিবাগত রাত ১১টা ৫৯ মিনিট থেকে এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে।

টুইটারে দেওয়া বিবৃতি অনুযায়ী, ‘উল্লিখিত চার দেশের যাত্রীদের আমিরাত প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হলেও আমিরাত থেকে এসব দেশের সঙ্গে ফ্লাইট চলাচল অব্যাহত থাকবে।’

গালফ নিউজ জানিয়েছে, সংযুক্ত আরব আমিরাতে ট্রানজিট নিয়ে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, নেপাল ও শ্রীলঙ্কায় যাওয়া বিমানগুলোর ক্ষেত্রে এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে না।

এই নিষেধাজ্ঞা শুধু তাদের জন্য, যারা সংযুক্ত আরব আমিরাতে প্রবেশের অন্তত ১৪ দিন আগ পর্যন্ত দেশেগুলোতে অবস্থান করেছিলেন। সংযুক্ত আরব আমিরাত দেশগুলোকে যাত্রী পরিবহনের অনুমতি দিলে আবারও বিমান চলাচল শুরু হবে।

তবে, সংযুক্ত আরব আমিরাতের নাগরিক, কূটনৈতিক মিশন, অফিসিয়াল প্রতিনিধি, ব্যবসায়ীক কাজে যাওয়া ও বয়স্ক ব্যক্তিদের এই নিষেধাজ্ঞার আওতার বাইরে রাখা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে কতগুলো পূর্ব সতর্কতা অবলম্বন করার কথা বলা হয়েছে। সেগুলোর মধ্যে রয়েছে, অন্তত ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে করা করোনাভাইরাসের পিসিআর টেস্টের নেগেটিভ রেজাল্ট দেখাতে হবে। কর্তৃপক্ষ আরও জানিয়েছে, উক্ত দেশগুলো থেকে যারা আসবেন অথবা সংযুক্ত আরব আমিরাতে প্রবেশের অন্তত ১৪ দিন আগে সেখানে ছিলেন তাদের জন্য এটা প্রযোজ্য হবে।

তবে ওইসব দেশগুলোর সঙ্গে কার্গো বিমান চলাচল অব্যাহত রাখবে সংযুক্ত আরব আমিরাত।

এই সিদ্ধান্তের ফলে যেসব ভ্রমণকারীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন তাদের সংশ্লিষ্ট এয়ারলাইন্সগুলোকে ফ্লাইটের সময়সূচি পরিবর্তন করতে বলেছে দেশটির কর্তৃপক্ষ, যেন তারা নিরাপদে গন্তব্যে পৌঁছাতে পারেন।

মতামত দিন