ধর্ষণের পর শিশুর হাতে ১০ টাকা দিয়ে ইমাম বলেন, ‘কিছু খেয়ে নিও’!

মসজিদের ইমামের কক্ষে আরবি পড়তে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হয়েছে ছয় বছরের এক শিশু। এ ঘটনায় আজ শুক্রবার সকালে শিশুটির বাবা বাদী হয়ে নড়াগাতি থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। পরে পুলিশ অভিযুক্ত ইমাম মো. আব্দুর রহমানকে গ্রেপ্তার করেছে। ভুক্তভোগী শিশুর শারীরিক পরীক্ষার জন্য নড়াইল সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

শিশুটির পরিবার জানায়, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে কলাবাড়িয়া ইউনিয়নের নিধিপুর উত্তরপাড়া জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ আব্দুর রহমান এর কাছে আরবি পড়তে যায় স্থানীয় শিশুরা। পড়া শেষ হয়ে গেলে ইমাম মক্তব ছুটি দিয়ে ছয় বছরের ওই শিশুটিকে প্রাইভেট পড়ানোর নাম করে রেখে দেন। পরে মসজিদ সংলগ্ন ইমামের থাকার ঘরে তাকে নিয়ে যায় এবং নানা প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করেন। এরপর ইমাম শিশুটির হাতে ১০ টাকা ধরিয়ে দিয়ে কিছু কিনে খেতে বলে এবং ঘটনাটি কাউকে বলতে নিষেধ করে। শিশুটি রক্তাক্ত অবস্থায় কাঁদতে কাঁদতে বাড়িতে গিয়ে তার বাবা-মাকে ঘটনা জানায়।

ঘটনার সত্যতা জানতে পরিবারের লোকেরা ইমামের কাছে গেলে ইমাম মসজিদ থেকে পালিয়ে যায়। বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে ইমাম পালিয়ে যাওয়ার সময় গ্রামবাসীরা তাকে ধরে নড়াগাতী থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে।

নড়াগাতি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রোকসানা খাতুন বলেন, ‘দাযেরকৃত মামলায় আব্দুর রহমানকে বৃহস্পতিবার রাতেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ধর্ষণের শিকার শিশুটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নড়াইল সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত চলছে।’

মতামত দিন