মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় মিরসরাইয়ে মামলা, আটক ২


এম মাঈন উদ্দিন, মিরসরাই (চট্টগ্রাম):
চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে মো. শাহজাহান (৭৫) নামে মুক্তিযোদ্ধাকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় ৮জনের নাম উল্লেখ করে জোরারগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। এছাড়া অজ্ঞাতনামা আরো ১০জনকে ওই মামলায় আসামী করা হয়। শনিবার (২৯ মে) বিকেলে নিহতের মেয়ে রিনা আক্তার বাদি হয়ে শাহাদাত হোসেন রনিকে প্রধান আসামী করে জোরারগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এদিকে ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে এজাহারনামীয় ৭ ও ৮ নং আসামীকে আটক করেছে পুলিশ। এরা হলো সানাউল্লাহ পলাশ ও নুরুল হুদা দুলাল।
নিহত নাম মো. শাহজাহান উপজেলার ওসমানপুর ইউনিয়নের রেহান উদ্দিন হাজি বাড়ির মৃত গণি আহম্মদের পুত্র। গত শুক্রবার (২৮ মে) জায়গা বিরোধ নিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় গুরুত্বর আহত হন শাহজাহান। পরে দুপুর আড়াই চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তিনি এক সময় ওচমানপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন। এদিকে লাশের ময়নাতদন্ত শেষে শনিবার আছরের নামাজের পর গার্ড অব অনার প্রদান করে জানাযা শেষে দাফন করা হয়েছে।
নিহতের ভাতিজা সোহেল মোস্তফা দোলন বলেন, শুক্রবার সকালে আমার চাচা বাড়ির পাশে একটি জমিতে মাটি কাটা দেখতে যান। এসময় নুরুল হুদা দুলাল ও তাজুল ইসলামের নের্তৃত্বে রাজা মিয়া, রানা, রনি, ইফাজ, ছুট্টু, ফজলু, সানাউল্লাহ পলাশ কয়েক জন সন্ত্রাসী তার উপর অর্তকিত হামলা চালায়। এতে তিনি মারাত্মক আহত হয়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়। এসময় তার শারিরীক অবস্থার অবনতি হলে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। শুক্রবার দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।
এবিষয়ে জোরারগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) হেলাল উদ্দিন চৌধুরী জানান, শুক্রবার জমি নিয়ে বিরোধের জেরে ওসমানপুর ইউনিয়নে মো. শাহজাহান নামে এক মুক্তিযোদ্ধা খুন হওয়ার ঘটনায় ৮জনের নাম উল্লেখ করে থানায় একটি মামলা দেয়া হয়েছে। এজাহারনামীয় দুই আসামী নুরুল হুদা দুলাল ও সানা উল্লাহ পলাশকে আটক করা হয়েছে। অন্য আসামীদেও আটকের চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

মতামত দিন