বোয়ালখালীতে ৫ শিশু বলাৎকার, হাফেজ জাকের আটক


সৈয়দ মো: নজরুল ইসলাম, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা প্রতিনিধি: বোয়ালখালী উপজেলান ৫ নং সারোয়াতলী ইউনিয়নস্হ মাদ্রাসায়ে তৈয়বিয়া তাহেরিয়া দরবেশিয়া সুন্নিয়ায়া এতিমখানা ও হেফজখানার ৩য় তলা বিশিষ্ট ছাএাবাসে ৫জন শিশু ধর্ষণ হয়েছে।
৩১ মে, সোমবার দিনগত রাত মাদ্রাসায়ে তৈয়বিয়া তাহেরিয়া দরবেশিয়া সুন্নিয়ায়া এতিমখানা ও হেফজখানা এলাকা থেকে শিশু ধর্ষক আটক করেন থানা পুলিশ।
মামলা সুত্র জানাযায় ২ এপ্রিল হতে ১২ এপ্রিল ২১ ইং পর্যন্ত বিভিন্ন সময় মাদ্রাসায়ে তৈয়বিয়া তাহেরিয়া দরবেশিয়া সুন্নিয়ায়া এতিমখানা ও হেফজখানার হাফেজ মোঃ জাকের (১৯) ৫ জন শিশুকে বিভিন্ন সময় হেফজখানার ৫ জন ছাএ (শিশু)কে প্রলোভন দেখাইয়া ও ফুসলাইয়া ধর্ষণ (বলাৎকার) করেন।
গতরাত এলাকাবাসি খবরটি জানাজানি হলে এলাকার জনসাধার হাফেজ মোঃ জাকের (১৯)কে আটক করে ৯৯৯ কলদিয়ে পুলিশের হাতে তুলেদনে। পরে সারোয়াতলী ইউনিয়নের উত্তর কঞ্জুরী এলাকার মৃত ওমর মিয়া পুত্র মোঃ আবু সিদ্দিক বাদী হয়ে বোয়ালখালী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন।
অভিযোগ সূত্রে জানাযায়-বোয়ালখালী উপজেলার ৫ নং সারোয়াতলী ইউনিয়নে অবস্হিত এ মাদ্রাসাটির প্রায় শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন সময় কুমন্ত্রণা ও কুপ্রস্তাব দিত অভিযুক্ত শিক্ষক হাফেজ মোঃ জাকের। এ নিয়ে কেউ উচ্চবাচ্য করার চেষ্টা করলে তার উপর নেমে আসত এ শিক্ষকের অমানুষিক নির্যাতন। এ ভয়ে তার বিরুদ্ধে সহজে মুখ খুলতে সাহস করতো না কেউ। শিক্ষার্থীদের এ নীরবতাকে পুজিঁ করে লম্পট এ শিক্ষক দিনের পর দিন চালিয়ে আসছিল মাসুম শিক্ষার্থীদের উপর অমানুষিক যৌন নির্যাতন। সম্প্রতি মাত্র কয়েকদিন আগে লম্পট এ শিক্ষকের একই সাথে ৫ শিক্ষার্থীর উপর পাশবিকতার খবর জানাজানি হয়ে গেলে এ নিয়ে স্হানিয় অভিভাবকদের মাঝে বিক্ষুদ্ধ্ব অবস্হা বিরাজ করতে থাকে। অবস্হা বেগতিক দেখে লম্পট এ শিক্ষক পালিয়ে যেতে চাইলে বিক্ষুদ্ধ্ব এলাকাবাসী পুলিশকে খবর দেয়। বোয়ালখালী পুলিশ সেখান থেকে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।
পরে এ ঘটনায় স্থানিয় উত্তর কন্জুরী গ্রামের মোঃ আবু সিদ্দিক নামের এক অভিভাবক থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ ধৃত এ শিক্ষক কে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের সংশ্লিষ্ট ধারায় আদালতে সোপর্দ করে।

গ্রেফতারকৃত আসামী হলেন বাঁশখালী উপজেলার পূর্ব কাতারিয়া এলাকার নবী আহাম্মদ ছেলে হাফেজ মোঃ জাকের (১৯)।
বোয়ালখালী থানার অফিসার ইনচার্জ আবদুল করিম বলেন অভিযোগ পাওয়া পর তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনায় জড়িত আসামি (১) হাফেজ মোঃ জাকের (১৯) পিতা- নবী আহাম্মদ সাং- পূর্ব কাতারিয়া থানা- বাঁশখালী, চট্টগ্রামকে গ্রেফতার করে আইনগত প্রক্রিয়া শেষে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

মতামত দিন