ত্রান চাইতে গিয়ে রামগঞ্জে হামলার শিকার মা ছেলে!

বিশেষ প্রতিনিধিঃ
‘আমরা গরীব মানুষ, ঘরে খাওন নাই, আনোয়ার এমপির ত্রান আইনতে গেছি। টিকেট জমা দি ত্রান নিতে যাইলে মজিব চেয়ারম্যানের বেয়াই নূরনবী খোকন ও তার ভাই মোতাহের আমগোরে মারধোর করে। অ্যাঁর হোলা রিয়াদ অ্যাঁরে বাঁচাইতে আওগ্গাই আইলে হেইগ্গারে চেয়ার ও রড দি এলোপাতাড়ি মারি মাথা হাডাই দেয়।’ ঘটনার এমন বিবরন দিতে গিয়ে ফ্যাল ফ্যাল করে কাঁদতে কাঁদতে কথাগুলো বলেছেন লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার করপাড়া ইউনিয়নের নোয়া বাড়ীর মৃত. আমিন উল্লার স্ত্রী হতদরিদ্র আদুরী বেগম (৪৫)।

মঙ্গলবার রাত ৯ টার দিকে উপজেলার করপাড়া ইউনিয়নের শ্যামপুর বাজারস্থ শাহ জকি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্থানীয় সাংসদ আনোয়ার হোসেন খান এমপির নিজস্ব তহবিল থেকে হতদরিদ্রদের মাঝে ত্রান বিতরনী অনুষ্ঠান শেষে এ ঘটনা ঘটে।
স্থানীয় কয়েকজন অভিবাবক অভিযোগ করে বলেন, শাহ জকি উচ্চ বিদ্যালয়ের ব্যাবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান মজিবুল হক মজিবের নির্দেশে সকাল ৯ টা থেকে রাত পর্যন্ত বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের স্কুল ব্যাগ একটি কক্ষে আটকে রেখে ছাত্রছাত্রীদের সভাস্থলে থাকতে বাধ্য করা হয়। তবে বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক মনির হোসেন বিষয়টি অস্বীকার করেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রিয়াদ জানায়, এমপি চলে যাওয়ার পর নির্ধারিত টিকিট দিয়ে ত্রান চাওয়ায় খোকন ও মোতাহার আমার মাকে মারধোর করছিল। আমি মাকে বাঁচাতে গেলে তারা আমাকে রড ও চেয়ার দিয়ে পিটিয়ে আমাকে রক্তাক্ত করেছে তারা ।

রিয়াদের বড় বোন কল্পনা আক্তার বলেন, আমরা গরিব মানুষ, এমপি সাহেবের ত্রানের স্লিপ নিয়ে গেলে খোকন ও তার ভাই আমার মা ও ভাইকে পিটিয়ে মারাত্মক আহত করেছে। এঘটনায় আমরা মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি।

অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ নেতা নূরনবী খোকন বলেন, তারা বাড়তি পেকেট নিতে চাইলে আমার ভাইয়ের সাথে এমন ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি। তবে ঘটনার সময় আমি বাড়িতে ছিলাম।

এব্যাপারে জানতে করপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মজিবুল হক মজিবের সাথে মুঠোফোনে বলেন-‘ আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে একটা স্বার্থান্বেষী মহল আমার সুনাম ক্ষুন্ন করার জন্য্য এমন অপপ্রচার চালাচ্ছে।’

রামগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, এব্যাপারে এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাইনি। তবে অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মতামত দিন