সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান

শারদীয় দুর্গোৎসবের ২য় দিন হতে কুমিল্লা, চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ, চট্টগ্রামের বাঁশখালী, কর্ণফুলী ও চট্টগ্রাম মহানগর পূজা উদ্যাপন পরিষদ পূজা মন্ডপ, কক্সবাজারের পেকুয়া, নোয়াখালিসহ বিভিন্ন জেলায় মন্দির-পূজামন্ডপ-বাড়িঘরে পরিকল্পিত হামলা, প্রতিমা ভাংচুর, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ ও হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ চট্টগ্রাম জেলা ও মহানগর শাখা নেতৃবৃন্দ।

১৬ অক্টোবর বিকাল ৪টায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব চত্বরে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা শাখার সভাপতি শ্যামল কুমার পালিত। চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক অসীম কুমার দেব ও মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক হিল্লোল সেন উজ্জ্বল’র পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য এড. নিতাই প্রসাদ ঘোষ, মহানগর পূজা উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি লায়ন আশীষ ভট্টাচার্য্য, প্রাক্তন সভাপতি এড. চন্দন তালুকদার, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি উত্তম শর্মা, কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন, সুগ্রীব মজুমদার দোলন, লিটন কুমার শীল, সুমন দে, রূপক শীল, মিঠুন সরকার, বলরাম চক্রবর্তী, রাজীব নন্দী বাবু, কাঞ্চন আচার্য্য, কাউন্সিলর সুনীল ঘোষ, লিটন দাশ ইপ্তি, সুজন তালুকদার, রুবেল শীল, কাজল শীল, উজ্জ্বল দেওয়ানজী, চন্দন দত্ত, নিউটন কুমার মজুমদার, লিংকন চক্রবর্ত্তী, মিত্র কুমার শীল, সজল দাশ, লিটন দেবনাথ লিখন, কল্লোল সেন, অধ্যাপক শিপুল দে, দীপক দাশ, শিবু প্রসাদ চৌধুরী, সৈকত মহাজন সাজু, সুজন কুমার শীল, দেবাশীষ মজুমদার প্রমুখ।

সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, কুমিল্লায় পরিকল্পিত ঘটনা সাজিয়ে বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় অনুষ্ঠান দুর্গা পুজায় হামলা, প্রতিমা ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। পরবর্তীতে চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় একই কায়দায় হামলা, লুটপাট, ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও হত্যাকান্ড এদেশের বিবেকবান মানুষের মনে ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে। স্বাধীন ধর্ম চর্চায় বিনা উস্কানীতে পরিকল্পিত হামলা বাংলার আবহমান সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের চক্রান্ত। দেশে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করে যারা আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটাতে চাই তাদেরকে দ্রুত গ্রেফতারপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দানের দাবি জানিয়েছে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আদেশ দেওয়ার পরেও বিভিন্ন জেলায় সহিংসতা চলছে। নেতৃবৃন্দ বলেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টকারী ও দুষ্কৃতিকারীরা যাতে আর প্রশ্রয় না পায় তার জন্য সরকার ও প্রশাসনকে দ্রুত কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে।

বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে এক বিশাল মিছিল চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব চত্বর থেকে আন্দরকিল্লা মোড়ে এসে শেষ হয়।

মতামত দিন