দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশে প্রথম ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম শুরু হয়েছে-দুবাইয়ের কনসাল জেনারেল

ইশতিয়াক আসিফ,আমিরাত।

নতুন বছরের শুরুতে সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রবাসীদের জন্যে এটি একটি উপহার। আপনারা জানেন আমরা যে ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রত্যায় নিয়ে এগিয়ে চলছি। ২০৪১ সালে বাংলাদেশ উচ্চ আয়ের একটি দেশ হিসেবে পরিণত হবে সে স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথে বাংলাদেশ সরকার যে সকল পদক্ষেপ নিয়েছে সে সকল পদক্ষেপ গুলো এক এক করে প্রধানমন্ত্রীর গতিশীল নের্তৃত্বে বাস্তবায়িত হচ্ছে। তার একটি অধ্যায় হচ্ছে ই-পাসপোর্ট। বাংলাদেশ সমিতি ফুজিরাতে ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম শুরুর অনুষ্টানে দুবাই নিযুক্ত কনসাল জেনারেল এমন মন্তব্য করেন । তিনি আরো বলেন দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশ প্রথম ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম শুরু করছে।

এর পুর্বে আবুধাবিতে বাংলাদেশ দূতাবাসে গত ২৩ ডিসেম্বর এবং ৩০ ডিসেম্বর দুবাই কন্সুলেটে আনুষ্টানিক ভাবে ই-পাসপোর্টের কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে।

দুবাই নিযুক্ত কনসাল জেনারেল বি এম জামাল হোসেনের উপস্হিতিতে এসময় ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন কালে স্বরাস্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোঃ খায়রুল আলম শেখ বলেন, বাংলাদেশে ইতিমধ্যে বাংলাদেশে জেলা এবং অঞ্চলিক অফিস নিয়ে ৭২ টি স্হানে ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এসময় তিনি আরো জানান ই-পাসপোর্ট ফর্ম জমা করা খুবই সহজ। যারা কিছুটা হলেও বুজেন বা আইটি সম্পর্কে ধারণা আছে তারা চাইলে ঘরে বসে নিজেদের ফর্ম নিজেরাই জমা করতে পারবেন।

সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাসুদ পারভেজের সঞ্চালনায় ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের অনুষ্টানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি বাবু তপন সরকার। অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদান করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক মোঃ সারওয়ার আলম এবং ই-পাসপোর্ট ও স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের উপ প্রকল্প পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এস এম সালাহ উদ্দিন। কনসুলেট অফিসের প্রথম সচিব (পাসপোর্ট) মোহাম্মদ কাজী ফয়সাল, সহ ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বহিরাগমন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ।

সমিতির হলরুমে অনুষ্টিত এ অনুষ্টানে এসময় বাংলাদেশ সমিতি ফুজাইরা শাখার নের্তৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহ সভাপতি সাইফুর রহমান, অর্থ সম্পাদক মোর্শেদ আলম সহ আরো উপস্হিত ছিলেন মাহাবুবুল হক, বেলাল হোসেন রানা, আবুল কাশেম, মাহিম উদ্দিন,কফিল উদ্দিন বেলাল, মোহাম্মদ ফারুক এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের পূর্বাঞ্চলে বসবাসরত বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যরা এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

মতামত দিন