বঙ্গবন্ধু বাঙ্গালির নিশ্বাসে বিশ্বাসে অন্তরে চিরজাগরুপ থাকবেঃ মোছলেম উদ্দিন আহমদ এমপি

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ১ আগস্ট (সোমবার) সকালে পুরো আগস্ট জুড়ে গৃহীত কর্মসূচীর সূচনা পর্বে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও চট্টগ্রাম ৮ আসনের সংসদ সদস্য মোছলেম উদ্দিন আহমদের নেতৃত্বে বোয়ালখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের পাঁচ শতাধিক নেতৃবৃন্দ গোপালগঞ্জ টুঙ্গীপাড়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং মাজার জিয়ারত করেন।
এ সময় মোছলেম উদ্দিন আহমদ এমপি বলেন, আগস্ট আমাদের জন্য ক্রন্দনের মাস। স্বাধীনতা যুদ্ধে পরাজয়ের গ্লানি ভুলতে না পেরে ও একটি স্বাধীন দেশকে অংকুরেই বিনষ্ঠ করে দেবার হীন ষড়যন্ত্রের অংশ হিসাবে ৭৫ এর ১৫ আগস্ট জাতির জনককে স্বপরিবারে হত্যা করা হয়। এই হত্যাকান্ডের মধ্য দিয়ে দীর্ঘ ধারাবাহিক সংগ্রাম ও একটি রক্তক্ষয়ী জনযুদ্ধে মীমাংসিত সত্য অর্জণগুলো যা আমাদের জাতীয় জীবনের ঐতিহ্য, কৃষ্ঠি ও সংস্কৃতিকে লালিত করে সেগুলো ক্ষতবিক্ষত করে আমাদের ঐক্য বিনষ্ঠ ও অগ্রযাত্রাকে রোধ করা হয়। এই রকম পিছনে ফিরে যাওয়ার নীতি একমাত্র বাংলাদেশেই সম্ভব হয়েছে।
তিনি বলেন, একটি ঘুমন্ত ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে সঠিক পথনির্দেশ দিয়ে স্বাধীন ভূখন্ড সৃষ্টি করে বিশ্বে আমাদের আত্মপরিচয় দানের সুযোগ দান করেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব। আমাদের দুর্ভাগ্য যে আমরা বঙ্গবন্ধুকে রক্ষা করতে পারিনি। মানব নামের দানব পরিচয়ে যারা এই অমানবিক, পৈশাচিক, নৃশংস হত্যাকান্ডে জড়িত ছিল ইতিহাসের বিচারে তারা আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু বাঙ্গালির নিশ্বাসে বিশ্বাসে অন্তরে চিরজাগরুক থাকবে।
তিনি আরো বলেন বঙ্গবন্ধুর আজীবন লালিত চিন্তা চেতনা সঠিক ছিল বলে তাকে হত্যা করা হয়েছে। তার হত্যাকান্ডের পর থেকে বাংলাদেশকে দূর্ণীতি, হত্যা, ক্যু, রাজনৈতিক হানাহানি, মুক্তিযোদ্ধা হত্যা, খাদ্য ঘাটতি, জঙ্গী, শিক্ষা সংকোচনের দেশে পরিণত করেছে। মুজিব বিহীন বাংলায় মুজিবের লাখো সৈনিকরা জনগনকে সাথে নিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সেই দুঃসময়ের মোকাবেলা করে বঙ্গবন্ধু সৃষ্ঠ বাংলার রাষ্ট্রক্ষমতা শেখ হাসিনার হাতে অর্পণ করেছে। বঙ্গবন্ধুর অসংখ্য গুনের অধিকারী শেখ হাসিনা বাংলা ও বাঙালির হৃত গৌরব পুনরুদ্ধার করেছে। বঙ্গবন্ধুর খুনীদের বিচার সমাপ্ত করেছে, মানবতাবাদী যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় কার্যকর করেছে সর্বোপরী দেশকে স্বাধীনতার চেতনার ধারায় ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে এবং এতে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা অনেকাংশে সফল হয়েছেন।
এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ শিক্ষা সম্পাদক বোরহান উদ্দিন এমরান, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক শাহনেওয়াজ হায়দার শাহীন, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান এস এম সেলিম, বোয়ালখালী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি নুরুল আমিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শামীম আরা বেগম, বোয়ালখালী পৌরসভা মেয়র মোঃ জহুরুল ইসলাম জহুর, বোয়ালখালী উপজেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি রেজাউল করিম বাবুল, এম এ ঈছা, কমান্ডার আবুল বশর, নুরুল আবছার হিরা, হাজি জানে আলম, আওয়ামী লীগ নেতা আহমদ আলী জাহাঙ্গীর, নুরুল হুদা, সাইদুর রহমান খোকা, হাজি ইলিয়াছ জাফর, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মেজবাহ উদ্দিন পাপ্পু, নুর হোসেন, চেয়ারম্যান এস এম জসিম উদ্দিন, চেয়ারম্যান আবদুল মান্নান মোনাফ, চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মোকারম, চেয়ারম্যান শামসুল আলম, চেয়ারম্যান শফিউল আজম শেফু, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হোসনে আরা বেগম, বোয়ালখালী পৌরসভা আওয়ামী লীগ সভাপতি শফিউল আলম, সাধারণ সম্পাদক মো: জাকারিয়া, কাউন্সিলর হাজি নাছের আলী, রিদোয়ানুল হক টিপু, জেলা যুবলীগের নেতা সাইফুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী যুবলীগ সভাপতি হাজি আবদুল মান্নান রানা, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য ওয়াশিম মুরাদ, মোশাররফ হোসেন, মোস্তফা কামাল, আবদুছ ছোবাহান, শফি তালুকদার, এস এম ইয়াছির, ইকবাল হোসেন তালুকদার, জাহাঙ্গীর আলম, এস এম দেলোয়ার হোসেন হাসান, আলমগীর মোর্শদ বাবু, মিজানুর রহমান সেলিম, শাহাজাদা এস এম শামসুল আবেদীন তারেক, রতন চৌধুরী, ইসমাইল হোসেন খোকন, ইসমাইল হোসেন আবু, আরিফ উদ্দিন জুয়েল, জাহাঙ্গীর আলম (নোলক), মো: পারভেজ, জোবাইদা আক্তার, শাহনাজ পারভীন নিলু, রুনা চৌধুরী, নাসরিন আক্তার, রমা বৈধ্য, শিল্পী আক্তার, ইঞ্জিনিয়ার নুরুল ইসলাম, মোছলেম উদ্দিন, অজিত বিশ্বাস, মো: শফি মেম্বার, জানে আলম, হাজী মো: সেলিম, আবুল কাশেম মুন্সী, নুরুল গনি শাহ, এস এম মহিউদ্দিন, রাজীব চক্রবর্ত্তী, আবদুল্লাহ হারুন বিন রিপন, আবদুল্লাহ আল নোমান, দিদারুল আলম, আবু কাউছার, আনিসুর রহমান বাবর, এস এম ওয়াহিদ মুরাদ নোমান, মো: নুরুল আবছার, নবজিৎ চৌধুরী রানা, এস এম শহিদুল ইসলাম খান শিমুল, সায়েম কবির, সাইদুল আলম, কাজী রাসেল, সরোয়ার আলম, জেলা তাঁতীলীগ সভাপতি দিদারুল আলম, আকুবদন্ডী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মোঃ নজরুল ইসলাম, দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম বোরহান আবদুল মোনাফ মহিন, আরিফুল হাসান রুবেল, বোয়ালখালী উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ইকরামুল হক মুন্না, সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম রাসেল, পৌরসভার সভাপতি জাবেদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক শেখ আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।
বিভিন্ন সংগঠনের প্রায় ৫ শত নেতা কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

মতামত দিন