যে কারণে কাস্টিং কাউচের মুখে পড়তে হয়নি রাইমা ও রিয়া সেনকে!

বলিউড অভিনেত্রী রাইমা সেন বলিউডের কাস্টিং কাউচ নিয়ে নিজের অভিজ্ঞতার কথা প্রকাশ করেছেন। রাইমা বলেন, যদি আমার পরিবার বিখ্যাত না হতো তবে আমার ও আমার বোন উভয়কেই কাস্টিং কাউচের শিকার হতে হত।

হলিউড প্রযোজক হার্ভে উইনস্টাইনের যৌন নির্যাতনের কাণ্ডকীর্তি ফাঁস হওয়ার পর দুনিয়ার বিভিন্ন দেশে একই ধরনের ব্যক্তিদের অপকর্ম ফাঁস হওয়ার ধারাবাহিকতা এখনও চলমান। এরই সূত্রে রাইমা সেনের এই বক্তব্য এতে নয়া মাত্রা যোগ করেছে।

অনেকেই অবশ্য ওয়েনের ওপর একতরফা যৌন নির্যাতনের অভিযোগেরি সমালোচনা করেছেন, কেউ কেউ অভিযোগকারী নারীদের উল্টো বিদ্ধ করতে চেয়েছেন অভিযোগে।

এদিকে মিটু প্রচারাভিযান সারা বিশ্ব জুড়ে তোলপাড় এখনও চলছে। রাইমা সেনকে যখন এই প্রচারণা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হয় তার মতামত, তখন তিনি সাংবাদিকদের বলেন- এটা এমন না যে আপনি পরিচালকের সঙ্গে বিছানায় গেলেন আর তার ছবিতে কাজ পেয়ে গেলেন।

রাইমা বলেন, এই কাস্টিং সোফাকাণ্ডটি এইভাবে ঘটে না। এটা আপনার নিজের কলাকৌশলের ওপর নির্ভর করে। অর্থাৎ আপনি যদি কারো সাথে শুয়ে থাকেন তবে আপনি তার কাছ থেকে কিভাবে কাজটি হাতিয়ে নেবেন- সেটার কায়দাও আপনাকেই করতে হবে।

রাইমা সেন আরও বলেন, আমি একটি চলচ্চিত্র পরিবার থেকে এসেছি। আমার পরিবারের নাম আছে… স্ট্যাটাস আঠে। সম্ভবত এ কারণেই আমি এবং আমার বোন রিয়া সেন কাস্টিং কাউচের মুখোমুখি হইনি, যা প্রায় সব অভিনেত্রীকেই কব্জা করার চেষ্টা করে।

রাইমা ও রিয়া সেন বিখ্যাত বিখ্যাত অভিনেত্রী সুচিত্রা সেনের নাতনি। আর তাদের মা মুনমুন সেনও বিখ্যাত বলিউড অভিনেত্রী ছিলেন। তাদের মতো প্রভাবশালী বা খ্যাতিমান চলচ্চিত্র পরিবার থেকে আসা মেয়েরা এই ঘৃণ্য রীতির শিকার হওয়া থেকে রক্ষা পেয়েছেন- এটা অনেকেই দাবি করেন। – জনসত্তা.কম

মতামত দিন