যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে বাংলাদেশের জিএসপি সুবিধার প্রয়োজন নেই

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে বাংলাদেশের জিএসপি সুবিধার কোনো প্রয়োজন নেই। আজ বুধবার সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানি রাষ্ট্রদূত হিরোইয়াসু ইজুমির সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘আমরা যতই অগ্রগতি করি না কেনো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে জিএসপি সুবিধা দেবে না। সব শর্ত পূরণ করা হলেও যুক্তরাষ্ট্র এ সুবিধা দেবে না। আর আমাদের সুবিধার প্রয়োজনও নেই। বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হলে এ সুবিধার আর দরকার হবে না।’

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা অচিরেই স্বল্পন্নোত দেশ থেকে উন্নত দেশে রূপান্তরিত হতে চলেছি। তাই জিএসপির প্রশ্নই ওঠে না। তখন জিএসপির প্রশ্ন উঠবে আমাদের সাথে ইইউ’র সঙ্গে। যাদের কাছ থেকে আমরা জিএসপি প্লাস চাইব।

বাংলাদেশের সামান্য পণ্যতে জিএসপি পেতাম উল্লেখ করে তোফায়েল আহমেদ বলেন, ইইউ’র জিএসপি আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জিএসপি এক নয়। আমরা শুধু তামাক, সিরামিক, প্লাস্টিক- এ রকম ৩-৪টি পণ্যের ওপর জিএসপি পেতাম। তৈরি পোশাকে দিত না। মাত্র ২৫ মিলিয়ন ডলারের ওপর আমরা জিএসপি পেতাম। অথচ আমরা রপ্তানি করি ৬ বিলিয়ন ডলারের মত।

মন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার পরে আমাদের সবচেয়ে বেশি অর্থ সহায়তা দিয়েছে জাপান। দেশটির সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের আমন্ত্রণ পেয়েছে বাংলাদেশ। জাপানে আমাদের রপ্তানিও বাড়ছে। আগামীতে দুই বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানির সুযোগ সৃষ্টি হবে।

বৈঠকে জাপানের রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশে আরো বিনিয়োগের আশা প্রকাশ করেছেন বলেও জানান তিনি।

মতামত দিন