খালেদা জিয়াকে খালাস দেওয়া উচিত ছিল: আইনজীবী

khaleda zia court

ঢাকা, ২৭ ডিসেম্বর : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির সঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া জড়িত ছিলেন না বলে দাবি করেছেন তাঁর আইনজীবী আবদুর রেজ্জাক খান।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর বকশীবাজারের স্থাপিত বিশেষ জজ আদালত ৫-এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামানের সামনে বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে সিনিয়র আইনজীবী আবদুর রেজ্জাক খান এই দাবি করেন। আজ আদালতে বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে যুক্তিতর্কের দিন নির্ধারিত ছিল। বেলা সোয়া ১১টার দিকে আবদুর রেজ্জাক খান যুক্তিতর্ক শুরু করেন।

বেগম খালেদা জিয়ার এই আইনজীবী বলেন, এই মামলার দায়ের করা অভিযোগের সঙ্গে বেগম খালেদা জিয়া জড়িত ছিলেন না। মামলার এজাহারে তাঁর বিরুদ্ধে কোনো বক্তব্য নেই। কোনো সাক্ষীও তাঁর বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ করেননি। বেগম খালেদা জিয়া এই ট্রাস্টের টাকা উঠিয়েছেন বা আত্মসাৎ করেছেন এরকম কোনো তথ্যের প্রমাণ দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষ থেকে দেখানো সম্ভব হয়নি। কিছু ছায়া প্রমাণ দিয়ে মামলা সাজানো হয়েছে। এর কোনো ভিত্তি নেই।

সারা দেশে এত মামলা থাকতে দুদক এই মামলার বিষয়ে এত আগ্রহী কেন সে প্রশ্নও রাখেন আবদুর রেজ্জাক খান।

এই মামলার অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা প্রতিবেদনে বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কোনো প্রমাণ দাখিল করতে পারেননি উল্লেখ করে আবদুর রেজ্জাক খান বলেন, আশা করি বেগম খালেদা সকল অভিযোগ থেকে খালাস পাবেন। এই মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদনের সময়েই বেগম খালেদা জিয়াকে খালাস দেওয়া উচিত ছিল। কিন্তু তা বিশেষ কারণে করা হয়নি। আমি আশা করি স্বাধীনভাবে আপনি ন্যায়বিচার করবেন এবং তিনি খালাস পাবেন।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার পঞ্চম দিনের মতো বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে তাঁর আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন এই মামলায় যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করবেন। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া, তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় অপর একটি মামলা করে দুদক।

মতামত দিন