মহেশখালীতে দুই বিমানের সংঘর্ষ, চার পাইলট উদ্ধার

moheskhali biman

কক্সবাজার: কক্সবাজারের মহেশখালীতে বিমান বাহিনীর দু’টি বিমান সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ পাইলট অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে আইএসপিআর।

বুধবার সন্ধ্যা ৬ টা ৫০ মিনিটে মহেশখালীর গোরকঘাট এলাকায় বিমান বাহিনীর দু’টি প্রশিক্ষণ বিমানের সংঘর্ষে একটি বিমান বিধ্বস্ত হয়। এতে বিমান দু’টির ৪ পাইলটের সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিলো না। তবে রাত ৮.৩০ টার দিকে আইএসপিআর নিশ্চিত করেছে, বিমানে থাকা ৪ পাইলটকে অক্ষত উদ্ধার করা হয়েছে।

তবে এর আগে এ ঘটনায় একজন পাইলটের নিহত হওয়ার খবর জানিয়েছিলেন কক্সবাজার এএসপি আফরুজুল হক।

মহেশখালী থানা থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূর এলাকায় বুধবার সন্ধ্যা ৬টা ৩৫ মিনিটের দিকে এ ঘটনা ঘটে। পৌরসভার পুটিবিলার সরওয়ার চেয়ারম্যানের বাড়ির পাশে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে।

বিমানটি বিধ্বস্তের পরপরই স্থানীয়দের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। সেখানে মহেশখালী ফায়ার সার্ভিস আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। কক্সবাজার পুলিশের বিশেষ শাখা সূত্রে জানা যায়, বিধ্বস্ত বিমানটি বিমানবাহিনীর প্রশিক্ষণ বিমান বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

ওই সূত্র জানায়, বিমানটিতে পাইলট ছাড়া আর কেউ ছিল কিনা তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
এতে স্থানীয় বাটা মাঝির বসতবাড়ির বেশীরভাগ অংশ ক্ষতিগ্রস্থ হলেও কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি বলে জানা গেছে। এসময় বাড়িসহ বিমানটিতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

ঘটনাস্থল পৌর এলাকার পুটিবিলায় এখনও বিধ্বস্ত হওয়া বিমানে আগুন জ্বলছে। আগুন যাতে এলাকায় ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট কাজ করছে।

আন্তঃবাহিনী গণসংযোগ পরিদফতরের (আইএসপিআর) পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল রাশেদুল হাসান দুর্ঘটনার খবর নিশ্চিত করেছেন। দুর্ঘটনা কবলিত বিমান ও এর আরোহীদের বিষয়ে পরে জানানো হবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

কক্সবাজার বিমানবন্দরের ম্যানেজার সাধন কুমান মোহন্ত এই দুর্ঘটনার খবর নিশ্চিত করে জানান, ‘আমরা দুর্ঘটনার খবর জেনেছি। পরে বিস্তারিত জানাতে পারবো।’

ফায়ার সার্ভিসের কক্সবাজারের এসও সাফায়েত হোসেনও দুর্ঘটনার খবর নিশ্চিত করে জানান, ‘এখনও উড়োজাহাজের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানা যায়নি।’
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, বিমানটিতে যারা ছিলেন তাদের কারো বেঁচে থাকার সম্ভাবনা ক্ষীণ। তবে তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

মতামত দিন