১১৫ ইউপি-পৌরতে ভোটগ্রহণ চলছে

up election

নিউজ ডেস্ক: স্থানীয় সরকারের ১১৫টি পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের বিভিন্ন পদে সাধারণ, স্থগিত নির্বাচন ও উপ-নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় শুরু হওয়া এ ভোটগ্রহণ বিরতিহীনভাবে চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। এ ছাড়া জেলা পরিষদে সকাল ৯টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত ভোট দেবেন জনপ্রতিনিধিরা।

ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বুধবার জানান, সুষ্ঠু ভোটগ্রহণের সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছি। আশা করছি, ভালোভাবে ভোটগ্রহণ করতে পারব। ভোটাররা তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে নির্বিঘ্নে বাড়ি ফিরতে পারবেন সেই ব্যবস্থা নিতে মাঠপর্যায়ে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

ইসির সংশ্লিষ্ট শাখা থেকে জানা যায়, বৃহস্পতিবার (আজ) ৯টি পৌরসভা (পঞ্চগড়ের বোদা, নাটোরের বনপাড়া, ফরিদপুরের আলফাডাংগা, জামালপুরের বকশিগঞ্জ, রাজশাহীর বাঘা ও দিনাজপুরের বিরল ৬টি পৌরসভায় সাধারণ এবং শেরপুরের শেরপুর, নরসিংদীর মাধবদী ও চুয়াডাঙ্গার চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার একটি করে সাধারণ ওয়ার্ডে উপ-নির্বাচন); ইউপি’র ১১৫টি (৩৭টি সাধারণ-স্থগিত নির্বাচন, ৭৮টি উপ-নির্বাচন) হচ্ছে। এ ছাড়া, জেলা পরিষদের ২টি ওয়ার্ডে সাধারণ ও ১টি উপজেলায় ভাইস-চেয়ারম্যান পদে ভোট রয়েছে। ভোট সুষ্ঠ করতে আইন শৃঙ্খলাবাহিনী মাঠে তৎপর রয়েছে।

৬টি পৌরসভার সাধারণ নির্বাচনে ৬টি মেয়র পদের জন্য ২৬ জন, সংরক্ষিত ১৯টি ওয়ার্ডের জন্য ১১২ এবং ৫৭টি কাউন্সিলর পদের জন্য ৩০১ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ৬১টি ভোট কেন্দ্রের জন্য এ নির্বাচনে সাধারণ ভোটকেন্দ্রে ১৯ জন এবং ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে ২০ জন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য দায়িত্বপালন করবেন। ৬ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও ৩০ জন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন।এ ছাড়া পুলিশ, এপিবিএন ও ব্যাটালিয়ন আনসারের সমন্বয়ে একটি মোবাইল ফোর্স ও একটি স্ট্রাইকিং ফোর্স দায়িত্ব পালন করবে।

ইসি কর্মকর্তারা আরো জানান, এ ছাড়া ইউনিয়নে প্রতি ভোটকেন্দ্রে ২০ জন করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ, বিজিবি ও র‌্যাবের মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে। কোথাও কোথাও কোস্টগার্ডও রয়েছে। প্রতিটি এলাকায় আচরণবিধি প্রতিপালনে মোবাইল কোর্ট কাজ করছে।

মতামত দিন