চার নারী ধর্ষণ, হান্নানের ৩দিনের রিমান্ড

hannan

নিজস্ব প্রতিবেদক: চার নারী ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া মো.আব্দুল হান্নান প্রকাশ হান্নান মেম্বারকে (৪৫) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৮ ডিসেম্বর) চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম আল ইমরান খান এই আদেশ দিয়েছেন।

নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) কাজী শাহাবুদ্দিন আহমেদ বলেন, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআইয়ের পরিদর্শক সন্তোষ কুমার চাকমা সাতদিনের রিমান্ড চেয়েছিলেন। শুনানি শেষে আদালত তিনদিন মঞ্জুর করেছেন।

তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাতদিনের হেফাজতে নেওয়ার অনুমতি চেয়ে আদালতে আবেদন করেছিল পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। আদালত শুনানী শেষে ৩দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই পরিদর্শক (মেট্রো) সন্তোষ কুমার চাকমা সাতদিনের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন আদালতে জমা দেন।

জানতে ‍চাইলে পরিদর্শক সন্তোষ বলেন, হান্নান মেম্বার ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী বলে আসামি আবু সামার জবানবন্দিতে এসেছে। তাকে বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন। সেজন্য রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেছি।

বৃহস্পতিবার কর্ণফুলী থানায় গ্রেফতার হওয়া আবুকে ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে ভিকটিমের শনাক্ত করার কথা ছিল। তবে পিবিআই মামলার তদন্তভার নেওয়ায় কর্ণফুলী থানা টিআই প্যারেড করছে না বলে জানিয়েছেন নগর পুলিশের উপ-কমিশনার (বন্দর) হারুন উর রশিদ হাযারী।

কর্ণফুলী থানায় গ্রেফতার হওয়া তিনজনের সঙ্গে ঘটনার কোন সম্পর্ক নেই বলে ইতোমধ্যে জানিয়েছে পিবিআই।

আব্দুল হান্নানকে বুধবার রাতে নগরীর কোতয়ালী থানা প্রাঙ্গনে পুলিশের অফিসার্স কোয়ার্টার থেকে গ্রেফতার করে পিবিআই। তার ছোট ভাই এসআই আব্দুল মান্নান বর্তমানে সিএমপির বিশেষ শাখায় কর্মরত আছেন।

গত ১২ ডিসেম্বর গভীর রাতে কর্ণফুলীর বড়উঠান ইউনিয়নের শাহ মিরপুর গ্রামে এক প্রবাসীর বাড়িতে ডাকাতি করতে গিয়ে বাড়ির চার নারীকে ধর্ষণ করে ডাকাতরা। এ ঘটনায় মামলা নিতে পুলিশের বিরুদ্ধে গড়িমসি করার অভিযোগের পর ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান জাবেদের নির্দেশে কর্ণফুলী থানা পুলিশ প্রায় সাতদিন পর মামলা নেয়।

এই ঘটনায় সিএমপির ব্যর্থতা স্বীকারের পর মামলার তদন্তভার নেয় পিবিআই। এ পর্যন্ত পিবিআই তিনজনকে গ্রেফতার করেছে, যাদের মধ্যে দুজন আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

মতামত দিন