২০১৭ সালটা যেমন কাটলো টাইগারদের

ক্রীড়া ডেস্ক: বিদায় নিতে যাচ্ছে ২০১৭ সাল। দুয়ারে কড়া নাড়ছে ২০১৮ সাল।উঠবে নতুন বছরের সূর্য। বিদায়ী বছরটা কেমন কাটলো বাংলাদেশ ক্রিকেটের, তা নিয়ে ক্রীড়া্প্রেমিদের রয়েছে অনেক কৌতুহল। তাই চলতি বছরের ক্রিকেটের হালচাল নিয়ে আমাদের এই আয়োজন।

সংক্ষেপ হিসেব করলে এছর তিন ফরম্যাট মিলিয়ে ৩০টি ম্যাচ খেলেছে টাইগাররা। এর মধ্যে জয় পেয়েছে ৭টিতে, হার ২০টিতে। ৩টি ওয়ানডে ম্যাচ পরিত্যাক্ত হয়। তবে এটাই শেষ কথা নয়। পরাজয়ের বৃত্ত ভেঙ্গে বারবার ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় ছিলো টাইগারদের খেলায়। তাই তো নিজেদের শততম টেস্টে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তাদেরই মাটিতে জয় পায় বাংলাদেশ। ঘরের মাঠে টেস্টে অস্ট্রেলিয়াকে বধ করা ও চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সেমিফাইনালে উঠার মতো সাফল্য তাই রঙিন তুলির আচড় কাটে টাইগারদের ২০১৭ সালের ক্যালেন্ডারে।

বছরটা টাইগররা শুরু করেছিলো নিউজিল্যান্ড সফরের মধ্য দিয়ে। যদিও সেই সফরটা মোটেও ভালো যায়নি লাল সবুজদের। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরের শেষের দিকে নিউজিল্যান্ড সফরে যায় বাংলাদেশ। সেখানে একটি ওয়ানডে সিরিজ, একটি টি-টুয়েন্টি সিরিজ ও একটি টেস্ট সিরিজ খেলে মুশফিক বাহিনী। পুরো সিরিজে দালীয় ভাবে কোন সাফল্যের মুখ দেখেনি বাংলাদেশ। তবে ঐ সিরিজের প্রথম টেস্টে নিজের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির মাইল ফলক স্পর্শ করেন বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ওই ম্যাচে মুশফিকও ১৫৯ রানের একটি দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন।

এরপর ফেব্রুয়ারিতে ভারত সফরে যায় বাংলাদেশ। হায়দরাবাদে অনুষ্ঠিত সিরিজের একমাত্র টেস্টেও জয়ের দেখা পায়নি টাইগাররা। বিরাট কোহলি, মুরালি বিজয় ও ঋদ্ধিমান সাহার দাপটে সিরিজ জিতে নেয় স্বাগতিকরা। তবে মার্চের শ্রীলঙ্কা সফরে নিজেদের শততম টেস্টে ঠিকই জয় তুলে নেয় সফরকারীরা। ম্যাচ সেরা হন তামিম ইকবাল। দ্বিতীয় ও নিজেদেরে শততম টেস্ট জিতে সিরিজ ড্র করে বিদেশের মাটিতে দ্বিতীয়বারের মতো সিরিজ ড্র করে দেশে ফেরে বাংলাদেশ। এই সিরিজেই টি-টুয়েন্টিকে বিদায় জানান মাশরাফি বিন মুর্তজা। ৪ এপ্রিল কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে টসের পরই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়ে দেন ম্যাশ।

এরপর মে মাসে নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত চ্যাম্পিয়নশিপ ট্রফিতে গ্রুপ ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো আইসিসির কোন আসরে সেমিফাইনালে উঠে নিজেদের ইতিহাসের সেরা সাফল্য পায় বাংলাদেশ। তবে এ বছর বাংলাদেশের সেরা সাফল্যটি ধরা দেয় মিরপুরে। আগস্টের শেষে মিরপুর টেস্টের এক রোমাঞ্চকর খেলায় সফারকারী অষ্ট্রেলিয়াকে পরাজিত করে বাংলাদেশ।

তারপর দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যায় বাংলাদেশ। এ সফরটাও ভালো যায়নি। সিরিজে টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে শোচনীয় হার নিয়ে দেশে ফেরে ‍টাইগার সদস্যরা।

দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ শেষে আরেকটি আলোচিত ঘটনাই ঘটে বাংলাদেশের ক্রিকেটে। লঙ্কান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে পদত্যাগ করেন টাইগারদের কোচের পদ থেকে। বাংলাদেশে সফল এক অধ্যায় শেষ করে নিজ দেশ শ্রীলঙ্কা দলের কোচ হয়েছেন তিনি। তার সেই দলকেই নতুন বছর শুরুতে প্রতিপক্ষ হিসেবে পাবে বাংলাদেশ। জানুয়ারিতে শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়েকে নিয়ে হবে ত্রিদেশীয় সিরিজ। এরপর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট ও টি-টুয়েন্টি সিরিজ। যে সিরিজে ২০১৮ সাল ভালোভাবে শুরুর একটি উপলক্ষ্য তো আছেই, সঙ্গে দর্শকদের দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের দুঃস্মৃতি ভোলানোর দায়ও থাকছে ক্রিকেটারদের।

মতামত দিন